বিচ্ছেদের মুখোমুখি মেঘ নীল, শুধু একট সই এর অপেক্ষা, জাজ বলে উঠলেন “ডিভোর্স গ্র্যান্টেড”

বর্তমানে আর পাঁচটা বিষয়ের মতন ডিভোর্স অর্থাৎ বিবাহ বিচ্ছেদটাও খুব স্বাভাবিক হয়ে উঠেছে মানুষের কাছে। কারণে অকারণে কোনরকম চেষ্টা না করেই সম্পর্কের ইতি টানতে ব্যস্ত সম্পর্কে থাকা ব্যক্তিরা। কিন্তু দর্শকরা কোন ভাবেই চান না ঠিক একইভাবে জি বাংলার (Zee Bangla) চ্যানেলের ইচ্ছে পুতুল (Ichhe Putul) ধারাবাহিকের নায়ক নায়িকার বিচ্ছেদ ঘটুক।

বর্তমান গল্প অনুযায়ী, নির্দোষ প্রমাণিত হয়েছে মেঘ। সবার প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে গোটা সমাজের সামনে মাথা নিচু হয়ে গিয়েছে আসল অপরাধীদের। এই মুহূর্তে ওই ধারাবাহিকের প্রধান বিষয় হয়ে উঠেছে মেঘ আর নীলের বিবাহ বিচ্ছেদ। শেষ কিছু দিনের ব্যবহার দর্শকদের মনে নীলের জন্য সহানুভূতি সৃষ্টি করেছে ফলে তারা এখন চান না এই বিচ্ছেদটা ঘটুক।

আরো পড়ুন: ভালোবাসায় মত্ত নায়ক কিন্তু নায়িকা কোন খেয়ালে, বিয়ের পরেও এত দূরত্ব! জলসার নতুন ধারাবাহিকে ফিরলেন রেজওয়ান!

কিন্তু মেঘ তার বাবাকে কথা দিয়েছে সে আর কোনো রকম বিষাক্ত সম্পর্কে জড়াবে না। এইবার সব রকম বাধা থেকে মুক্ত হয়ে এসে শুধুমাত্র নিজের কথা ভাববে নিজেকে নিয়ে বাঁচবে। সে নিজেই একবার বলেছিল, যদি কোনদিনও সে দুর্বল হয়ে যায় তাহলে তার বাপি যেন তাকে আটকায়।

তার বাপি সেটাই করেছে। কিন্তু অনিন্দ্য বুঝতে পারছে মেয়েটা কষ্ট পাচ্ছে। সে মন থেকে প্রবল ভাবে চায় নীলের কাছে ফিরে যেতে, কিন্তু তার বাপিকে করা প্রমিস মরে গেলেও ভাঙবে না মেঘ। মেঘের মনকে পড়তে পেরে অনিন্দ্য তাকে সমস্ত প্রতিজ্ঞার জাল থেকে মুক্ত করে দেয়।

ধারাবাহিকের আগামী পর্বে দেখা যাবে, বিচ্ছেদের একেবারে দোরগোড়ায় পৌঁছে গিয়েছে নায়ক নায়িকা। কারণ জানতে চাওয়া হলে নীল তার করা সমস্ত অন্যায় মাথা পেতে নেয় এবং কোথাও কোনো কিছু না লুকিয়ে সবটা স্বীকার করে। জাজ তখন তাদেরকে বলে, আরো ছয় মাস একসাথে থেকে তাদের চেষ্টা করা উচিত। যদি কাজ না হয় তবে ৬ মাস শেষ হলেই ডিভোর্স গ্রান্টেড হবে। ছমাস কি একসাথে থাকতে রাজি হবে মেঘ?

Back to top button