দিব্যার নোংরা চক্রান্তের শিকার হলো জ্যাস, অপহরণের মামলায় গ্রেফতার কৌশিকী মুখার্জী!

সবার সময় সবসময় ভালো যায় না। আর এই খারাপ সময়ের সুযোগ নিয়ে পিছন থেকে চুড়ি করে শত্রুরা। এই মুহূর্তে ঠিক সেটাই করছে জি বাংলার (Zee Bangla) নাম্বার ওয়ান ধারাবাহিক জগদ্ধাত্রীর (Jagaddhatri) ভয়ংকর নেতিবাচক চরিত্র দিব্যা সেন আর বৈদেহি মুখার্জী। সুযোগ বুঝে অনেক পরিকল্পনা করে একসাথে দুই পাখি মারার পরিকল্পনা করেছে তারা। গল্পে বেড়েই চলেছে রহস্য।

শুরু থেকেই এই ধারাবাহিকে অন্যতম প্রধান চরিত্র হমিসেবে কৌশিকী মুখার্জীর বিরোধিতা করতে দেখা গিয়েছে খলচরিত্র দিব্যা সেনকে। তবে প্রত্যেকবার শেষ হাসিটা হেসেছে কৌশিকী। তবে এইবার সে নিজেই এক মারাত্মক চক্রান্তের শিকার হয়েছে। আর সেটা খুব ভালো করেই বুঝতে পারছে কৌশিকী। সব দিক থেকে কৌশিকীকে পথে বসানোর পরিকল্পনা করে ফেলেছে দিব্যা। আর তার সাথে হাত মিলিয়েছে উত্তরবঙ্গের দেবু।

ধারাবাহিকের আজকের পর্বে দেখা যায়, কৌশিকী মুখার্জীকে ফোন করেছে গুন্ডা বিজু গাইন। সে কৌশিকীকে বলে, “আমি আপনার কথা মতো বৈদেহি মুখার্জীকে খিদিরপুরের গোডাউনে রেখেছি। আপনি ঠিক যেমনটা বলেছেন তেমনটাই হচ্ছে।” কৌশিকী জিজ্ঞেস করে এসব কি বলছে সে? তখন বিজু বলে, “কেনো ম্যাডাম, আপনার মনে নেই? আপনিই তো আমায় পাঁচ লক্ষ টাকা দিয়ে বললেন বৈদেহি মুখার্জীকে সরিয়ে দিতে কিছুদিনের জন্য।” তখন ফোনটা নিয়ে নেয় জগদ্ধাত্রী আর সরাসরি জিজ্ঞাসা করে কেনো এসব বলছে সে? কিন্তু ফোনটা কেটে দেয় বিজু গাইন।

সব শুনে কৌশিকী বলে, “আমায় কেউ পাঠানোর চেষ্টা করছে। আর আমি ওদের জালে জড়িয়ে পড়েছি। কেউ পিছন থেকে এই খেলাটা খেলছে।” জগদ্ধাত্রী তাড়াতাড়ি সেখান থেকে বেরিয়ে যায়। সে সোজা চলে যায় খিদিরপুর। সেখানে গিয়ে কিছু গুন্ডাকে পেটায় সে আর এইসব কিছু দেখে ফেলে সাধু। তার পর জগদ্ধাত্রীর কাছে একটা ফোন আসে আর সেই ফোনটা করে বৈদেহি মুখার্জী। সে ফোন করে বলে, “আমাকে মেরনা জগদ্ধাত্রী, আমি তোমার নামে সব লিখে দেবো।” জগদ্ধাত্রী এবার নিশ্চিত কেউ এসব ইচ্ছে করে করছে।

আরো পড়ুন: শুধু শ্রাবন্তী, অনুপম, কাঞ্চন নন বিয়ের হ্যাটট্রিক করেছেন এই টলিউড তারকারা! কারা? চিনে নিন

এরপর সাধু জগদ্ধাত্রীকে বলে, “তুমি এরকম বদলে যাবে আমি কল্পনাও করতে পারছি না।” জগদ্ধাত্রী বলে, “আপনি আমাকে অবিশ্বাস করছেন স্যার?” সাধু বলে, জ্যাস একবারও ডিপার্টমেন্টে জানিয়েছিল তার খিদিরপুর যাওয়ার কথাটা? জগদ্ধাত্রী বলে, সে জানানোর সুযোগ পায়নি। তবে অবশ্যই জানতো। কিন্তু তার একটাও কথা বিশ্বাস করে না সাধু। অন্য দিকে দিব্যা উৎসবকে ফোন করে তার কোম্পানির একান্ন শতাংশ শেয়ার চায় কারণ তাদের শত্রু বিনাশ হতে চলেছে। এসবের কোনো মাথা মুন্ডু বুঝতে পারে না উৎসব।

Back to top button