জগদ্ধাত্রীর মুখে গরম কফি ছুড়ল বৈদেহি! আসল অপরাধীদের কাছে পৌঁছে গেল জ্যাস!

দীর্ঘ কয়েক মাস যাবত জি বাংলার (Zee Bangla) নাম্বার ওয়ান ধারাবাহিক হলো জগদ্ধাত্রী (Jagaddhatri)। জগদ্ধাত্রী ধারাবাহিকটিকে টেক্কা দেওয়া বেশ কষ্টসাধ্য হয়ে উঠেছে তার প্রতিপক্ষের জন্য। ধারাবাহিকটি সম্পূর্ণ রূপে একটি নারী কেন্দ্রিক গল্প নিয়ে সম্প্রচারিত হচ্ছে। ৮ থেকে ৮০ প্রত্যেকেই এই ধারাবাহিকের নায়িকার অনেক বড় ভক্ত। বর্তমানে এক জটিল কেসে নিজেকে নিমজ্জিত করেছে ধারাবাহিকের নায়িকা। গল্পে এসেছে অনেক বড় চমক।

বর্তমানে এই ধারাবাহিকের গল্পে এসেছে নানা রকম জটিলতা। কৌশিকী এবং জগদ্ধাত্রী দুজন মিলেই উৎসবকে তার প্রাপ্য শাস্তি পাইয়ে দিতে সক্ষম হয়েছে। এখন উৎসবের মা-বাবা দুজন মিলে যতই চেষ্টা করুক না কেন তাকে জেল থেকে বের করা প্রায় অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে। এর মধ্যেই এক নতুন কেসের অনুসন্ধানে ঢুকে পড়েছে জগদ্ধাত্রী। এক আমলার হারিয়ে যাওয়া ছেলেকে খুঁজে দিতে নিজের যথাসাধ্য চেষ্টা করছে সে। এর মাঝেই সেই আমলার সাথে কিছুটা দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েছে কৌশিকী।

ধারাবাহিকের আজকের পর্বে দেখা যায়, খেতে বসে রাজনাথ কৌশিকীকে বলে, “সবাই মিলে মুখোমুখি বসে আমি একটা ডিল করতে চাই, তুমি যা চাইবে তাই হবে তার বদলে উৎসবকে জেল থেকে ছাড়াতে হবে। আর এই লেখালেখি বন্ধ করতে হবে। যে কোন মূল্য দিতে আমি রাজি আছি উৎসবের জন্য।” এসব শুনে কৌশিকী বলে সে তার কলমে মোটেই থামাবে না। তার যেটা ভালো মনে হবে সেটাই লিখবে। তাকে থামানো মুশকিল।

এই সমস্ত কথায় প্রচন্ড রেগে যায় বৈদেহি। জগদ্ধাত্রী তাকে কফির কাপ দিতেই সে গরম কফি জগধাত্রীর মুখে ছুড়ে মারার চেষ্টা করে। একটু জন্য বেঁচে যায় জগদ্ধাত্রী। এরপর সে বৈদেহিকে বলে, “আপনি বোধহয় ভুলে গেছেন আমি একজন চৌকস পুলিশ অফিসার। আপনার হাতে একটা রিভলভার থাকলে আপনি বোধহয় সেটাও চালিয়ে দিতেন।” জগদ্ধাত্রীদের এই কথায় পূর্ণ সমর্থন জানায় বৈদেহি। সে বলে হ্যাঁ সে সেটাই করতো। জগদ্ধাত্রী তাদের সবাইকে স্পষ্ট জানিয়ে দেয় যে, উৎসব শাস্তি পাবেই। মেহেন্দি বলে সে যে কোন ভাবে উৎসবকে ঠিক বের করে আনবে।

আরো পড়ুন: মোড় ঘোরানোর তিন দিন, শ্লীলতাহানির অপরাধে গ্রেফতার রোহিত, সব অভিযোগ মিথ্যে প্রমাণ করবে ফুলকি!

এরপর জগদ্ধাত্রী চলে যায় কিছু বড়লোক উচ্চাকাঙ্খী ছেলে মেয়েদের পার্টিতে। সেখানে গিয়ে সে মিউজিকটা বন্ধ করতেই রাহুল নামের একটি ছেলে জগদ্ধাত্রীকে থ্রেট করে এবং জগদ্ধাত্রী দিকে তার বডিগার্ড লেলিয়ে দেয়। সবাইকে ধরাশায়ী করে তালে জগদ্ধাত্রী। এরপর সে জানায় যে সে স্পেশাল ফোর্স পুলিশ অফিসার। তার আসার কারণ জানতে পেরে সোহিনী নামের একটি মেয়ে কান্নাকাটি শুরু করে দেয়। এরপর জগদ্ধাত্রী তাদের চেপে ধরে। সেকি এই ছেলে মেয়েগুলোর কাছ থেকে কোন তথ্য পাবে?

Back to top button