ফুল দিয়ে রাইকে নিজের মনের কথা জানালো অনির্বাণ! মি’থ্যে লুকোতে নতুন ফ’ন্দি আঁ’ট’লো নিলু!

Mithijhora Today Episode: কাউকে কথা দিয়ে সেই কথার খেলাপ করাটা একেবারেই পছন্দ করে না জি বাংলার (Zee Bangla) মিঠিঝোড়া (Mithi Jhora) ধারাবাহিকের নায়িকা রাই। কিন্তু এই মুহূর্তে সে এমন এক পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়েছে যেখানে সে না পারছে এগোতে আর না পারছে পিছতে। বর্তমানে বাংলার দর্শকদের মাঝে বেশ জনপ্রয়তা পাচ্ছে এই ধারাবাহিকটি। টিআরপিতেও মাথা তুলে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে এই মেগা।

ধারাবাহিকের বর্তমান প্লট অনুযায়ী, স্রোতের কলেজে গিয়ে প্রিন্সিপাল স্যারের সাথে কথা বলে স্রোতকে তার কলেজে একটা সাভাবিক জায়গা ফিরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে রাই। স্যার কথা দেন স্রোতের সাথে আর কখনও এরকম কিছু হবে না। কিন্তু রাতে কিছুতেই ঘুম আসতে চায় না রাইয়ের দুই চোখে। সে কিছুতেই বুঝে উঠতে পারে না, কিভাবে বসের বাড়ি যাওয়ার জন্য বেরোবে সে।

ধারাবাহিকের আজকের পর্বে দেখা যায়, স্রোত এত রাতে কেনো জেগে আছে, এটা জিজ্ঞেস করায় স্রোত রাইকে বলে, “ওই লোকটাকে আমি ভয় পাই। ও রীতিমতো আমার মাথা কব্জা করে নিয়েছে। সারাটা সময় ওনার কথা গুলো আমার মাথায় ঘুরছে। আমি ঠিক থাকতে পারছিনা। চোখ বন্ধ করলেও আমি ওনাকে দেখতে পাচ্ছি।” নিজের কথাগুলো শেষ করে স্রোত রাইকে জিজ্ঞেস করে, সে এত রাতে কার সাথে কথা বলছিলো। রাই তখন স্রোতকে সমস্তটা খুলে বলে। তার অফিসের বস তার হাতের রান্না খেতে চেয়েছেন, তাকে বাড়িতে নেমন্তন্ন করেছেন এই সবটাই স্রোতকে জানায় রাই। কথাবার্তা শুনে রাইয়ের বসকে বেশ ভালো লাগে স্রোতের।

এদিকে সকাল হতেই নিলু ঠিক করেছে নিজের বাপের বাড়ি আসবে। তার স্বামী বারবার তাকে তার বাপের বাড়ি পৌঁছে দিতে চাইলে নিলু তাতে বাধা দেয়। কারন সে ঠিক করেছে বাড়ি এসে কাউকেই কিছু বলবে না নিলু। কারণ একবার যদি সত্যিটা সবাই জানতে পেরে যায় তাহলে তার অনেক বড় সর্বনাশ হয়ে যাবে। অনেক বুঝিয়ে সুজিয়ে একাই নিজের বাপের বাড়ি চলে আসে নিলু। ততক্ষণে সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে রান্নাবান্না করা শুরু করে দিয়েছে রাই। রাই মনে মনে ভাবতে থাকে কিভাবে সমস্তটা সেরে নিজের বসের বাড়িতে যেতে পারবে সে। যদিও স্রোত বারবার রাইকে তাড়া দেয় আর বাড়ির সবাইকেও বোঝানোর চেষ্টা করে রাই এর একটা নেমন্তন্ন রয়েছে। প্রায় সারাদিন অফিস করার পর এই একটা ছুটির দিন কেন বাড়ির জন্য খাটতে যাবে এটাই বুঝে উঠতে পারে না স্রোত। কিন্তু নিলু এসে রাইকে আরো বেশি রান্না ঘরের মধ্যেই বন্ধ করে রাখতে চায়।

আরো পড়ুন: মায়ের আংটি বিক্রির টাকায় অডিশন দিয়ে আজ প্রতিষ্ঠিত নায়িকা! মিঠিঝোরার রাইয়ের জীবন যুদ্ধের কথা শুনলে চোখে জল আসবে আপনার

এদিকে সমস্ত বাজার করে সবকিছু জোগাড় করে রাইয়ের অপেক্ষায় বসে রয়েছে অনির্বাণ। তার কাজের মাসি যখন জানতে পারে একটি মেয়ে এসে অনির্বাণের বাড়িতে রান্না করতে চলেছে, তখন সেই মেয়েটিকে দেখতে বেশ আগ্রহী হয়ে ওঠে সে। অনির্বাণ জানায় আজকের সমস্ত রান্না সেই মেয়েটি করবে। অনির্বাণ অনেক ফুল এনেছে ঘর সাজানোর জন্য। এই সমস্ত ফুলই রাইয়ের পছন্দের। রাইয়ের কথা ভাবতে ভাবতে তাকে নিয়ে দিবা স্বপ্ন দেখতে শুরু করে অনির্বাণ। সে দেখে এইসব ফুল দিয়ে সে রাইকে নিজের মনের কথা জানাচ্ছে আর রাইও লাজুক দৃষ্টিতে তার দিকে চেয়ে রয়েছে। কিন্তু কিছুক্ষণের মধ্যেই তার সেই স্বপ্ন ভেঙে যায় আর সে ভাবতে থাকে কখন আসবে রাই। অন্যদিকে রাইও চেষ্টা করতে থাকে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব সবটা মিটিয়ে বেরিয়ে যাওয়ার কারণ কথার খেলাপ করার মেয়ে সে নয়।

Back to top button