লটারি জিতল সৃজন, টিকিট চুরি করতে গিয়ে হাতে নাতে ধরা পরল অয়ন!

জি বাংলার (Zee Bangla) নিম ফুলের মধু (Neem Fuler Modhu) ধারাবাহিকে বর্তমানে চলছে উৎসব। ধারাবাহিকের নায়িকা সন্তান সম্ভবা, গোটা দত্ত বাড়ি মেতে উঠেছে সেই আনন্দে। আর এই উৎসবে শামিল হয়েছে দর্শক মহল। যার ফল স্বরূপ চলতি সপ্তাহে টিআরপি তালিকায় প্রথম স্থান দখল করেছে নিম ফুলের মধু। তবে শুধুই যে আনন্দ তেমনটা কিন্তু নয়, এর মাঝেও অনেক প্রতিকূলতার সম্মুখীন হতে হচ্ছে নায়ক নায়িকাকে।

বর্তমান গল্প অনুযায়ী, পর্ণা আর সৃজন দুজনে মিলে একটা লটারির টিকিট কাটে। যার পুরস্কার মূল্য পঞ্চাশ লক্ষ টাকা। সৃজন নিশ্চিত ছিল সে টাকাটা পাবে কারণ তার স্ত্রী তার জন্য খুবই লক্ষী। ওই টিকিটের ওপর বরাবর নজর ছিল অয়নের। আর সেটা হাতাতে গিয়েই ঘটে গেল এক চরম কান্ড। অন্যদিকে গোটা দত্ত বাড়ির মাথা থেকে পুত্র সন্তানের ভূত নামানোর জন্য কি করা যায় সেটাই এখন প্রধান চিন্তার বিষয় হয়ে উঠেছে ধারাবাহিকের নায়িকা পর্ণার।

ধারাবাহিকের আজকের পর্বে দেখা যায়, গাড়ি চালাতে চালাতে লটারির টিকিটের কথাটাই চিন্তা করতে থাকে সৃজন। যার ফলে সৃজন এতটাই আস্তে আস্তে গাড়ি চালায় যে অফিস পৌঁছতে পৌঁছতে পর্ণার অনেক দেরি হয়ে যায়। যদিও মাঝপথে পর্ণার ধমক খেয়ে আবারও কিছুটা গতি বাড়ায় সৃজন। রুচিরাও সবটা জানতে পেরে খুব খুশি হয়। সে তার বন্ধুকে বলে, সৃজন দা তাকে খুবই ভালোবাসে তাই জন্য তার এতটা খেয়াল রাখে। কিন্তু পর্ণার মাথায় ঘুরতে থাকে অন্য দুশ্চিন্তা।

অফিস ছেড়ে দুজনে বাড়ি ফিরে আসে। এদিকে অয়ন আর মৌমিতা প্রতিনিয়ত পরিকল্পনা করেই চলেছে কিভাবে টিকিটটা হাতানো যায়। পরের দিন সকাল হতেই মৌমিতাকে তাড়াতাড়ি তুলে অয়ন চলে যায় খবরের কাগজ আনতে। সেখানে চোখ রাখতেই চমকে যায় অয়ন। কারণ তাদের টিকিটে কোন টাকা ওঠেনি কিন্তু সৃজন যে টিকিটটা কেটেছে সেটা লেগে গিয়েছে অর্থাৎ ৫০ লক্ষ টাকা এখন সৃজনের। এটা কিছুতেই মেনে নিতে পারেনা অয়ন। যখন পর্ণা সৃজন কেউই ঘরে থাকে না সেই সুযোগ নিয়ে সৃজনের ঘর থেকে টিকিটটা খুঁজে চুরি করে নেয় অয়ন। ঠিক সেই সময় সেখানে চলে আসে পর্ণা। প্রথমটা বেশ ভয় পেয়ে যায় সে কিন্তু ধরা পড়তে পড়তে একটু জন্য বেঁচে যায় অয়ন।

আরো পড়ুন: জ্যাসকে হুমকি দিতে গিয়ে ধরা পড়লো ঋষি রায়ের খুনি! উৎসবকে বাঁচাতে গিয়ে নিখোঁজ বৈদেহি

এরপর সৃজন যখন টিকেটের নাম্বারটা পেপারের সাথে মিলিয়ে দেখে তখন আনন্দে আত্মহারা হয়ে যায় কারণ তার টিকিটটা মিলে গেছে। কিন্তু অয়ন নিজের টিকিটের সাথে সৃজনের টিকিটটা অদল বদল করে দিয়েছিল। তাই আসল টিকিটটা বের করতেই চমকে ওঠে সৃজন। তাদের দুজনেরই বুঝতে বাকি থাকেনা কে এই টিকিটটা সরিয়েছে। এদিকে সৃজন কিছু বলতেও পারে না কারণ সে নিজের চোখে অয়নকে চুরি করতে দেখেনি। এতদিন ধরে এত আনন্দে ছিল সে হঠাৎ করে এসব কিছু কেমন যেন হারিয়ে যায়। পর্ণার এই গোটা বিষয়টাই খুব খারাপ লাগে। সৃজন এর মন খারাপ সে সহ্য করতে পারে না।

Back to top button