পুলিশের ভয়ে পিছিয়ে গেল রূপ, ময়ূরীকে জানিয়ে দিল মেঘের ক্ষতি সে করবে না! এবার একাই নিজের পথে এগোবে ময়ূরী!

জি বাংলা (Zee Bangla) চ্যানেলে সম্প্রচারিত একটি চর্চিত এবং জনপ্রিয় ধারাবাহিক হচ্ছে ইচ্ছে পুতুল (Ichhe Putul)। এখানে নায়িকা চরিত্রে অভিনয় করছেন তিতিক্ষা দাস (Titiksha Das), এবং নায়ক হিসেবে মৈনাক ব্যানার্জী। খলনায়িকা চরিত্রে দেখা যাচ্ছে শ্বেতা মিশ্রকে। ঠাম্মির আবদার রাখলনা মেঘ।

ধারাবাহিকের একদম শুরুর দিন থেকেই বিভিন্ন ভাবে গল্পের নায়িকা মেঘকে বিপদে ফেলতে উঠে পড়ে লেগেছে তার দিদি ময়ূরী। সেই কাজে প্রাথমিকভাবে সফল হলেও পরবর্তীতে তার সমস্ত কারসাজি ফাঁস হয়ে যায় সবার সামনে। কারণ মিথ্যে কখনো চাপা থাকে না।

ধারাবাহিকের এই দিনের পর্বে দেখা যায়, ঠাম্মি তার অসুস্থতার কারণে মেঘের গান সামনে থেকে শুনতে পারেনি বলে মেঘ তার সামনে বসে গান গায়। সেই গান শুনতে একে একে ঠাম্মির ঘরের দরজায় জড়ো হয় লাল, গিনি। গান শোনার পর ঠাম্মি মেঘকে বলে আর একবার কি এই বাড়ির সবাইকে ক্ষমা করা যায় না? তখন মেঘ ঠাম্মিকে জানিয়ে দেয়, সে আর ফিরবে না।

এরপর দেখা যায় ময়ূরীকে ডেকে পাঠিয়েছে রূপ। ময়ূরী রূপকে বলে, “তুমি নাকি বলেছিলে মেঘের ফাংশন নষ্ট করে দেবে, কিছুই তো করতে পারলে না।” তখন রূপ বলে, “মেঘকে ভয় দেখাতে গিয়ে আরো একবার হাজতবাস হতে যাচ্ছিল। তাই আমি এখন কিছু করবো না। পারলে গিনির কাছে গিয়ে ক্ষমা চেয়ে ওকে দিয়ে কেসটা উইথড্র করাব।” রূপ ভয় পেয়েছে দেখে নিজের সমস্ত আশা হারিয়ে ফেলে ময়ূরী।

এরপর দেখা যায় মেঘ নীলের বাড়ি থেকে ফিরে নিজের ঘরে ঢুকে অনেকক্ষণ ঠাম্মির বলা কথাগুলো ভাবতে থাকে আর তারপরেই চিৎকার করে কেঁদে ওঠে। মেঘের বাবা যখন জল আনতে ওঠে তখন সে মেঘের কান্না শুনতে পায়। সে বুঝতে পারে না তার কি করা উচিত, একবার ভাবে মেঘকে কাঁদতে দেওয়া উচিত আবার তার কান্না সহ্য করতে পারেনা অনিন্দ্য। অর্থাৎ বোঝাই যাচ্ছে ধীরে ধীরে সমস্ত অভিমান গলে জল হয়ে যাচ্ছে মেঘের।

Back to top button