মায়ের বায়না শুনে অবাক পরাগ, পলাশ! শিমুলের দেখাদেখি এবার পাড়ার লোকের সাথে ঘুরতে যাবে শাশুড়ি

শিমুলের দেখাদেখি এবার ঘুরতে যাওয়ার জেদ ধরলেন মধুবালা, অবাক পরাগ ও পলাশ

বর্তমানে জি বাংলায় (Zee Bangla) যে সমস্ত ধারাবাহিক গুলি সম্প্রচারিত হচ্ছে তার মধ্যে সবচেয়ে বাস্তববাদী একটি ধারাবাহিক হচ্ছে কার কাছে কই মনের কথা (Kar kache koi moner kotha)। এই ধারাবাহিকে নায়িকা শিমুল ছাড়াও আরো চারজন নায়িকা রয়েছেন। তবে ধারাবাহিকের প্রধান আকর্ষণ শিমুল। ধারাবাহিকটি সমাজের বাস্তব দিকগুলিকে নাটকীয়তার মধ্যে দিয়ে সম্প্রচার করে চলেছে।

সম্প্রতি অনেক রকম ঝামেলা অশান্তির পর সমুদ্রে যাওয়ার অনুমতি পায় শিমুল। এরপর শিমুল, বিপাশা, সুচরিতা ও তার মেয়ে টুইংকেল, শীর্ষা এবং শিমুলের দুই ননদ সবাই মিলে পাড়ি দেয় সমুদ্রে। প্রথম দিন বেশ হাসি মজায় কাটলেও বাদবাকি সময়টা একদমই আনন্দ করতে পারেনি তারা।

সমুদ্রে গিয়ে অনেক রকমের দুর্ঘটনা ঘটে তাদের সাথে। প্রথমত প্রায় জলে তলিয়ে যায় পুতুল। অনেক কষ্ট করে পুতুলকে বাঁচায় শিমুল। এক অনেক বড় বিপদ ঘটে যাওয়ার হাত থেকে রক্ষা পায় সে। অন্যদিকে অসুস্থ হয়ে পরে টুইংকেল অর্থাৎ সুচরিতার মেয়ে।

এরপর বাড়ি ফেরে সকলে। বাড়ি ফেরার পর কম কথা শুনতে হয়নি শিমুলকে। তবে সেও চুপ করে থাকেনি তাকে করা অপমান কড়ায় গন্ডায় ফিরিয়ে দিয়েছে সে। কিন্তু এইবার ধারাবাহিকে এল নতুন চমক। শিমুলকে বরাবরই ঈর্ষা করত তার শাশুড়ি। তারই প্রমাণ মিলল আরো একবার।

ধারাবাহিকের আগামী পর্বে দেখা যাবে, শিমুলের শাশুড়ি দুই ছেলেকে বলে পাড়ার সকলে মিলে কাশি যাবে ঠিক করেছে। মোট কুড়ি হাজার টাকায় সমস্ত কিছু হয়ে যাবে। তিনিও কাশিতে যেতে চান। এই শুনে অবাক হয়ে যায় পরাগ। কুড়ি হাজার টাকা! পরাগের চোখমুখ দেখে তার মা তাকে বলে, “এই বুড়ি, মাটাকে যেতে দিবি না? যখন নিজের বউ গেল তখন যেতে দিয়ে দিলি।” পাশ থেকে চুপচাপ সব শুনতে থাকে শিমুল।

Back to top button