গল্পের আসল কূটনী পলাশ-প্রতীক্ষা! শিমুলের উদারতায় পরাগের মন গলতেই আবার বি’ষ ঢালা শুরু দুজনের

এই মুহূর্তে বাংলা টেলিভিশনের পর্দায় যে ধারাবাহিক বাংলা টেলিভিশন (Bengali Television) প্রেমীদের মাতোয়ারা করে রেখেছে সেই ধারাবাহিকটির নাম কার কাছে কই মনের কথা (Kar Kache Koi Moner Kotha) । বাঙালি টেলিভিশন প্রেমীরা এই মুহূর্তে এই ধারাবাহিকে মজে রয়েছেন।‌

এই মুহূর্তে এই ধারাবাহিকের প্রেমে পড়েছেন দর্শকরা। আর ভালো গল্প ও দর্শকপ্রিয়তার কারণেই এই ধারাবাহিকটি এই মুহূর্তে টিআরপি তালিকায় দারুণ পারফরম্যান্স করেছে। দর্শকরা এই মুহূর্তে মজে রয়েছেন এই ধারাবাহিকে। আসলে এই ধারাবাহিকের প্রত্যেকটি পর্ব এখন এতটাই উত্তেজনা বহুল যে তা দর্শকদের নজর কেড়েছে এই ধারাবাহিক।

আসলে বাংলা টেলিভিশনে কিছু কিছু গল্প দারুণ রকম ভাবে দর্শকদের মন জিতে নেয়। আর সেটাই হয়েছে এই ধারাবাহিকের ক্ষেত্রে।

এই ধারাবাহিকের নিয়মিত দর্শকরা জানেন বধূ নি’র্যা’ত’ন, নারী নি’র্যা’ত’নে’র মতো ভীষণ রকম স্পর্শকাতর বিষয়ের ওপর নির্ভর করে এখন এই ধারাবাহিকটি এগিয়ে চলেছে।

এই ধারাবাহিকটি শুরুর দিকে দারুণ রকম কটাক্ষের সম্মুখীন হয়েছিল। বিশেষ করে তার শাশুড়ির চরিত্রটি তীব্রভাবে কটাক্ষবিদ্ধ হয়‌। তবে ইতিমধ্যেই শিমুলের শ্বশুরবাড়িতে তার শাশুড়ির চরিত্রে আমূল পরিবর্তন দেখানো হয়েছে। আর এবার দর্শকরা আশা করছেন হয়ত আগামী দিনে তার স্বামীর চরিত্রে পরিবর্তন দেখানো হতে পারে।

আর সেটাই হতে শুরু করেছে। এই ধারাবাহিকের সাম্প্রতিক পর্বে আমরা দেখেছি শিমুলের স্বামী-দেওর শিমুলকে প্রাণে মেরে ফেলার চেষ্টা করেছে। শিমুলের সিদ্ধির গ্লাসে বি’ষ মিশিয়ে ছিল তারা। এই কাজ যে পরাগ, পলাশ এবং প্রতীক্ষা তিনজনে মিলে করেছে সেই কথা সবারই জানা। আর তাই শিমুলের পাড়ার বন্ধুরা শিমুলকে ন্যায়বিচার পাইয়ে দেওয়ার জন্য তার স্বামী, দেওর এবং দেওরের হবু স্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা করে।

কিন্তু হঠাৎ করেই নিজের শ্বশুরবাড়িকে আড়াল করে শিমুল। পুলিশকে শিমুল বলে সে নিজে বিষ খেয়েছিল। আর যা শুনে পরাগ পলাশ সহ চমকে যায় পরিবারের সবাই। শিমুলের এই কাজে যে পরাগ অবাক হয়েছে এবং তার মন আংশিকভাবে গলেছে তার ইঙ্গিত মেলে শিমুলের কথাবার্তায়। এই অবস্থায় পলাশ এবং প্রতীক্ষা নতুন করে পরাগের কানে শিমুলের নামে কুমন্ত্রণা দিতে থাকে। আসলে পলাশ আর প্রতীক্ষা চায় না শিমুল-পরাগ ভালো থাকুক। আর সেই জন্যই এই কাজ করে চলেছে তারা।

Back to top button