মেঘকে শায়েস্তা করতে নতুন ফন্দি নীলের! পাড়ার ছেলেদের টাকা দিয়ে মেঘকে দিয়ে গান গাওয়াবে সে!

এই মুহূর্তে বাংলা টেলিভিশনের পর্দায় যে ধারাবাহিকটি নিত্যদিন দর্শকের মনোরঞ্জন করে চলেছে সেই ধারাবাহিকটির নাম ইচ্ছে পুতুল (Icche Putul)। বাংলা টেলিভিশন প্রেমীরা এই মুহূর্তে এই ধারাবাহিকের প্রেমে মজে রয়েছেন।‌ দর্শকরা এখন এই ধারাবাহিকটি দেখতে দারুণ রকম পছন্দ করছেন।

আর এই জনপ্রিয়তার কারণেই এই মুহূর্তে এই বাংলা ধারাবাহিকটি টিআরপি তালিকায় এত ভালো পারফরম্যান্স করছে। আগে যে ধারাবাহিক ভালো পারফর্ম করেও স্লটলিড করতে পারছিল না এখন নতুন স্লটে যেতেই অনায়াসে সেই ধারাবাহিকটি নজরকাড়া পারফরম্যান্স করছে। বাঙালি দর্শক মুগ্ধ হয়ে গেছে এই ধারাবাহিকে।

এই ধারাবাহিকের মূল গল্প আবর্তিত হয়েছে তিনজনকে ঘিরে। এই ধারাবাহিকের গল্প অনুযায়ী ময়ূরীর সঙ্গে বিয়ে হওয়ার কথা ছিল কলেজের প্রফেসর সৌরনীলের।ময়ূরীকেই বাড়ির বউ হিসেবে কামনা করেছিল সৌরনীলের পরিবার। কিন্তু সৌরনীল ভালোবেসে ফেলেছিল মেঘকে।

আর তাই বিয়ের মন্ডপে দাঁড়িয়ে ময়ূরীর অসুস্থতা, তার নোংরা মানসিকতার কথা বলে তাকে বিয়ে না করে তার বোন মেঘকে বিয়ে করে নেয় সৌরনীল। এই অপমান ভুলতে পারেনি ময়ূরী। আর ছোট থেকেই মেঘের সমস্ত ভালো কিছুর ওপর নজর ছিল ময়ূরীর। হিংসা করত বোনকে। আর ওই ঘটনার পর থেকেই আরও বেশি করে প্রতিশোধপরায়ণ হয়ে ওঠে ময়ূরী।

এরপর সে মেঘকে নীলের জীবন থেকে দূরে করে দেওয়ার জন্য পরিকল্পনা করতে থাকে। সফলও হয়। সে বারংবার মেঘকে বিপদে ফেলে। মেঘের শ্বশুরবাড়ির অনেকেই মেঘকে পছন্দ করত না। বিশেষ করে তার শাশুড়ি, ননদরা। আর সেই সুযোগটাই নেয় ময়ূরী। সে ভুল বোঝায় সবাইকে। মেঘের বিরুদ্ধে উস্কোয়।

আর মেঘের স্বামী সৌরনীল ক্রমাগত মেঘকে সন্দেহ করে তাকে ভুল বুঝে দূরে করে ফেলেছে।আর এবার ময়ূরীর নোংরা চেহারা এবং তার মেঘকে ফাঁসানোর কথা সবার সামনে চলে আসায় মেঘের প্রতি নীলের ভালোবাসা আবার‌ও মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। এখন সৌরনীলের পুরো পরিবার মেঘকে আবারও তাদের বাড়ির বউ হিসেবে পেতে চাইছে । কিন্তু মেঘ যে এতটা সহজলভ্য নয়, নিজের আত্মসম্মান বিসর্জন দিতে প্রস্তুত নয় সেটা সে ভালো করে বুঝিয়ে দেয়।

বর্তমানে ভালো গান গাওয়ার সুবাদে এখন দারুণ জনপ্রিয়তা মেঘের। আর তাই সৌরনীলের পাড়ার পুজোয় পাড়ার ছেলেরা নীলের কাছে আবদার করে একটি সংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজনের জন্য। যেখানে অষ্টমীর রাতে মেঘকে গান গাওয়ার কথা বলে। তখন নীল তাদের বলে যে মেঘের সঙ্গে সরাসরি কথা বলে নিতে। কারণ এটা তার প্রফেশনাল বিষয়। মুখে না বললেও নীল অবশ্য মনে মনে চায় মেঘ অনুষ্ঠান করুক তার পাড়ায়।

এরপর নীলের পাড়ার ছেলেরা মেঘের বাপের বাড়িতে এসে আবদার করে তাকে অষ্টমীর রাতে গান গাওয়ার জন্য। কিন্তু বারংবার না বলে মেঘ‌। জানিয়ে দেয় তার অন্যত্র অনুষ্ঠান রয়েছে। কিন্তু কোনভাবেই নীলের পাড়ার পুজোর উদ্যোক্তাদের কাটাতে না পেরে, তখন মেঘ তাদেরকে স্পষ্ট বলে আমি গান গাওয়ার জন্য কত টাকা পারিশ্রমিক নিই তা আপনাদের জানা আছে? তখন তারা বলে তুমি তো পাড়ার বউ তুমি কি পারিশ্রমিক নেবে?

আরও পড়ুনঃ মা কালির বেশে নাচ করলেই অসুস্থ হয়ে পড়েন শ্রুতি, কারণ জানালেন অভিনেত্রী নিজেই!

মেঘ তখন তাদের স্পষ্ট করে বলে এটাই আমার প্রফেশন। সম্পর্কের দোহাই দিলে তো প্রফেশনটাই আর টিকবে না। আপনারা আমার উপযুক্ত অর্থ দিলেই গান গাইব আমি। মেঘের পারিশ্রমিকের অঙ্ক শুনে চমকে যান সবাই। এরপর একপ্রকার নিরাশ হয়ে তারা বেরিয়ে গেলে মেঘ তার বাপিকে জিঞ্জাসা করে আমি যথেষ্ট খারাপ হতে পেরেছি? তারপর সে বলে আমাকে খারাপ হতেই হবে! সবাই ভালো মানুষের সুযোগ নেয়! আসলে সৌরনীল ও তার পরিবারের সামনে আবার খারাপ হওয়ার চেষ্টা করছে মেঘ। অন্যদিকে পাড়ার উদ্যোক্তারা নাছোড় মেঘকে দিয়ে গান গাওয়াবে বলে। তখন সৌরনীল এই সব ঘটনা শুনে বলে সে টাকা দিয়ে দেবে। কিন্তু সেই কথা যেন মেঘ না জানতে পারে।

Back to top button