মেঘ নীলের সম্পর্ক ভাঙতে এবার লালের বউ ময়ূরী! লালকে কি এই চক্রান্ত থেকে বাঁচাতে পারবে মেঘ নাকি নিজেও দিদির চাল বুঝবে না

এই মুহূর্তে জি বাংলার একটি চর্চিত এবং জনপ্রিয় ধারাবাহিক হচ্ছে ইচ্ছে পুতুল। ধারাবাহিকের শুরুতে সবাই ভেবেছিলেন এই মেগা আগাগোড়া সবটাই স্টার জলসার ইচ্ছে নদী ধারাবাহিকের কপি। কিন্তু পরবর্তীতে সেটা ভুল প্রমাণিত করে আকর্ষণীয় গল্পের মাধ্যমে দর্শকদের মন জয় করে নিচ্ছে এই ধারাবাহিক।

এই ধারাবাহিকের কাহিনী আবর্তিত হয়েছে দুই বোন মেঘ এবং ময়ূরী এবং তাদের একজনই পছন্দের মানুষ সৌরনীলকে নিয়ে। ময়ূরী অর্থাৎ মেঘের বড় দিদি কখনোই মেঘের ভালো সহ্য করতে পারে না। ময়ূরীর পছন্দ ছিল সৌরনীলকে। কিন্তু নীল ভালোবাসে মেঘকে। তাই মেঘের প্রতি ময়ূরীর রাগ আরো দশ গুণ বেড়ে যায়।

মেঘের ক্ষতি করায় এই মুহূর্তে ময়ূরীর জীবনের একমাত্র লক্ষ্য। কিছুদিন আগেই পাসপোর্ট সরিয়ে রেখে মেঘ আর নীলের হানিমুনে যাওয়া ভেস্তে দিয়েছে সে। সবাই মেঘকে দোষী সাব্যস্ত করলেও মেঘ নিজেকে ঠিক নির্দোষ প্রমাণ করে। এবং নীলের বাড়ি ছেড়ে নিজের বাড়ি চলে আসে। অনুশোচনায় ভুগতে থাকে নীল। শেষ পর্যন্ত থাকতে না পেরে মেঘের বাড়ির সামনে চলে যায় সে।

এরপর অনেক কথা হয় মেঘ আর নীলের মধ্যে। এবং তাদের দুজনের সম্পর্কটা ঠিক হয়ে যায়। অন্যদিকে মেঘে বাড়িতে ঢুকতে দিয়েছে দেখে মায়ের কাছে একাধিক নালিশ জোরে ময়ূরী। ময়ূরী বলে মেঘ একবারও আমাদের কথা ভাবলো না, বাড়ির সিকিউরিটির কথা ভাবল না? তখন মধুমিতা অর্থাৎ ময়ূরীর মা বলে ওঠে তুমি আর ওদের নিয়ে চিন্তা করো না, তোমাকে আমি এবার একটা ভালো জায়গায় দিয়ে দেবো। ময়ূরী বলে তুমি আমায় যেখানে বিয়ে দেবে আমি সেখানেই বিয়ে করবো।

তবে কি এবার সেই পুনরাবৃত্তি হতে চলেছে ইচ্ছে নদীর? নীলের ভাইয়ের সাথে অর্থাৎ লালের সাথেই কি এবার বৈবাহিক বন্ধনে আবদ্ধ হবে ময়ূরী? মেঘের ক্ষতি করতে পারলে ময়ূরী আর কিছু চায়না। কোনভাবে যদি নীলের বাড়িতে ঢোকা যায় তাহলে মেঘ এর সংসার ছারখার করে দেবে ময়ূরী। এবার কি তবে মেয়েকে জব্দ করতে লালের গলাতেই মালা পরাবে সে?

Back to top button