মেহেন্দিকে নিজের চেয়ার ছেড়ে দিল কৌশিকী! অদ্ভুত ভাবে ফিরে এলো বৈদেহি মুখার্জী!

এই মুহূর্তে যত দিন যাচ্ছে রহস্য ঘনীভূত হচ্ছে জি বাংলার (Zee Bangla) জগদ্ধাত্রী (Jagaddhatri) ধারাবাহিকের প্রতিটি পর্বে। এই ধারাবাহিকের নায়িকা জগদ্ধাত্রী দর্শকদের মনে রাজ করছে। প্রত্যেক সপ্তাহে টিআরপিতে প্রথম পাঁচে অবস্থান করে এই মেগা। এতদিন ধরে কোন কেস অসম্পূর্ণ রাখেনি নায়িকা। তবে এখন বেশ ভয়াবহ অবস্থায় রয়েছে নায়িকা। তাকে ফাঁসানোর সমস্ত পরিকল্পনা করে ফেলেছে তার শত্রুরা।

যারা জগদ্ধাত্রীর ক্ষতি করতে চায় তারা খুব ভালোভাবেই জানে জগদ্ধাত্রীকে সরাতে গেলে সবার আগে যাকে সরাতে হবে সে হলো স্বয়ং কৌশিকী মুখার্জী। জগদ্ধাত্রীর ঢাল হয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে সে। তাই প্রথমে কৌশিকীকে ফাঁসানোর ব্যবস্থা করে ফেলে দিব্যা সেন। দিব্যা বিজু গাইনকে দিয়ে ফোন করায় কৌশিকীকে। আর এমন কিছু কথা বলায় যাতে করে মনে হয় বৈদেহি মুখার্জীর অপহরণ মামলায় সরাসরি জড়িত রয়েছে কৌশিকী।

ধারাবাহিকের আজকের পর্বে দেখা যায়, কৌশিকীর চেয়ার হাতানোর জন্য একটা দারুন পরিকল্পনা করে মেহেন্দি আর তার মা শকুন্তলা। হঠাৎ করেই মেয়ের শ্বশুর বাড়িতে চলে আসে শকুন্তলা। সে এসে মেহেন্দিকে বলে, “যেখানে তোর কোনো সম্মান নেই, সেখানে আর তোকে পড়ে থাকতে হবে না। তুই আমার সাথে আমার বাড়িতে যাবি।” সবাই আটকানোর চেষ্টা করে মেহেন্দিকে কিন্তু শকুন্তলা নিজের জেদে অনড়।

রাজনাথ শকুন্তলাকে অনুরোধ করে সে যেনো এমনটা না করে। উৎসব বলে, সে মেহেন্দিকে খুব ভালোবাসে। তাই দয়া করে সে যেনো তার স্ত্রীকে নিয়ে না যায়। তখন শকুন্তলা বলে, “কী মুরুদ আছে তোমার? আমার মেয়ের দায়িত্ব নেওয়ার ক্ষমতা আছে? গাড়ির তেল ভরাতে গেলেও বাবার কাছে হাত পাততে হয় তোমায়। তুমি নাকি দায়িত্ব নেবে মেহেন্দির! আজ বাড়ি থেকে বের করে দিলে তোমায় রাস্তায় গিয়ে দাঁড়াতে হবে। তার আগেই আমি ওকে নিয়ে চলে যাবো।” এই বলে বেরিয়ে যেতে গেলেই শকুন্তলাকে আটকায় কৌশিকী মুখার্জী আর জিজ্ঞেস করে, তার ঠিক কি চাই।

এটাই এতক্ষণ শুনতে চেয়েছিল শকুন্তলা আর মেহেন্দি। কারণ শকুন্তলা এখানে এসেছে কৌশিকীর সাথে ডিল করতে। সে কখনোই তার মেয়েকে এই বিলাসবহুল বাড়ি ছেড়ে নিজের বাড়িতে নিয়ে যেত না। শকুন্তলা বলে, কৌশিকীর চেয়ারটা মেহেন্দিকে দিতে হবে। আর এডিটোরিয়াল ডিপার্টমেন্টের সমস্ত দায়িত্ব এবার থেকে মেহেন্দি সামলাবে। কৌশিকী বলে, সে রাজি। তবে মেহেন্দিকে অফিসের পাশাপাশি নিজের সংসারও সামলাতে হবে, অর্থাৎ খুন্তি ধরতে হবে এছাড়াও বাড়ির কাজ করতে হবে যেমনটা জগদ্ধাত্রী করে। যদি মেহেন্দি দুটো দিক সামলে চলতে পারে তবেই সে এই দায়িত্ব পাবে। শকুন্তলা বলে মেহেন্দি সব পারবে। এরপর সবাই চলে যেতেই শকুন্তলা মেহেন্দিকে বলে, সোজা আমলে ঘি না উঠলে আঙুলটাকে এভাবেই বাঁকাতে হয়।

Back to top button