ঋষির শ্রাদ্ধ করতে গিয়ে ধরা পড়ে গেল অনিন্দিতা! উৎসবের জামিনের জন্য অন্য খেলা খেললো দেবু! ফাঁস আগামী পর্ব

একটা সময় ছিল যখন এ জি বাংলা চ্যানেলটিকে মিঠাই ধারাবাহিকের জন্য দর্শকরা বেশি করে পছন্দ করতেন। কিন্তু এই মুহূর্তে জি বাংলা (Zee Bangla) মানেই জগদ্ধাত্রী (Jagaddhatri)। দীর্ঘ কয়েক সপ্তাহ ধরে বেঙ্গল টপার এর জায়গা দখল করে রেখেছে এই ধারাবাহিক। ধারাবাহিকের নায়িকাকে দর্শকরা এতটাই পছন্দ করেন যে, একদিনও টেলিভিশনের সামনে থেকে চোখ সরাতে পারেন না তারা।

এই মুহূর্তে জগদ্ধাত্রী এক জটিল কেসের তদন্ত করতে ব্যস্ত। একটি ছেলে হঠাৎ করেই উধাও হয়ে যাওয়ায় চিন্তায় পড়েছে তার মা। এই উধাও হয়ে যাওয়া ছেলেটি আদৌ জীবিত রয়েছে কিনা সেই বিষয়ে কোনো নিশ্চয়তা দিতে পারছে না পুলিশ। সেই ছেলেটিকে খুঁজে বার করতেই উঠে পড়ে লেগেছে জগধাত্রী। উপর মহলের নির্দেশে গোটা বিষয়টাকে জন সমক্ষে না এনে তদন্ত করার চেষ্টা করছে জগদ্ধাত্রী। নিজের পেশাগত জীবন সামলে শ্বশুরবাড়িতেও সমানভাবে নিজের দায়িত্ব পালন করে জগদ্ধাত্রী।

ধারাবাহিকের আজকের পর্বে দেখা যায়, মন খারাপ হয়ে গিয়েছে, ধারাবাহিকের নায়িকার। সে চলে আসে কৌশিকীর কাছে। কৌশিকী জগদ্ধাত্রীর মন খারাপের কারণ জিজ্ঞাসা করলে সে বলে, বাইরের এত কাজ সামলে সে বাড়িতে এসে বাড়ির সব কাজেও হাত লাগায়। এত কষ্ট করে এত কিছু রান্না করে কিন্তু কেউ খেতেই আসেনা। তার খারাপ লাগে। শুনে কৌশিকী বলে, সবাই খাবে নিজের হাতে পরিবেশন করে সবাইকে খাওয়াবে তারা। ঠিক এমন সময় জগদ্ধাত্রীর একটা ফোন আসে। ফোনটা ধরে এসে জানতে পারে অনিন্দিতা নিজের বাড়ি থেকে বেরিয়েছে একজন পুরোহিতের সাথে। কথাটা শুনেই তাড়াতাড়ি সেখানে ছুটে যায় জ্যাস।

জগদ্ধাত্রীর লোক অনিন্দিতার পিছু করতে করতে একটা বাড়ি অবধি পৌঁছয় এবং সেখানকার গার্ড এর থেকে জানতে পারে এখানে একটা শ্রাদ্ধের অনুষ্ঠান হচ্ছে। অন্যদিকে বিজয়লক্ষী ফোন করে জগদ্ধাত্রীকে আর বলে, তার ছেলে ঠিক যেদিন থেকে গায়েব হয়েছে সেদিন থেকে গোনা শুরু করলে আজ তার শ্রাদ্ধ হওয়ার কথা। এরপর জগদ্ধাত্রীর জানতে পারে অনিন্দিতা যে বাড়িতে গেছে সেখানেও শ্রাদ্ধের অনুষ্ঠান হচ্ছে। অমনি দুইয়ে দুইয়ে চার করে ফেলে সে। সব ছেড়ে সোজা চলে যায় অনিন্দিতার বাড়িতে।

আরো পড়ুন: জনপ্রিয় অভিনেত্রী মানসী সিনহার বিরুদ্ধে আর্থিক প্রতারণার অভিযোগ! কী বলছেন অভিনেত্রী?

বাড়ি গিয়ে অনিন্দিতা দেখে তার মেয়ে কিছুই খায়নি। অস্মিতা তার মাকে বলে, এ সমস্ত নিরামিষ সে খেতে পারে না। অনিন্দিতা রেগে যায় আর বলে একদিন নিরামিষ খেলে কিছু হয় না। ঠিক তখনই সেখানে চলে আসে জগদ্ধাত্রী। আর নিরামিষ খাওয়ার কারণ জিজ্ঞাসা করে। অনিন্দিতা প্রচন্ড ভয় পেয়ে যায়। জগদ্ধাত্রী আরো কিছু কথা বললে অস্মিতা তারপর চিৎকার করে ওঠে এবং নিজের মাকে অপমান করতে বরণ করে। কিন্তু অনিন্দিতা বুঝতে পারে এবার হয়তো তার সব লুকোনো সত্যিই সবার সামনে চলে আসবে।

Back to top button