গুঞ্জনকে চেপে ধরতেই বেরিয়ে এলো আসল সত্যি! সবটা জেনে অবাক হয়ে গেল জগদ্ধাত্রী!

বর্তমান সপ্তাহ অনুযায়ী টিআরপি তালিকা তৃতীয় স্থান প্রাপ্ত ধারাবাহিকটি হচ্ছে জি বাংলার (Zee Bangla) জগদ্ধাত্রী (Jagaddhatri)। প্রায় একমাস এই ধারাবাহিকটি বেঙ্গল টপার এর জায়গা থেকে সরে গিয়েছে। তাই ধারাবাহিকের প্রতিটি পর্বে কর্তৃপক্ষ এমন নতুন নতুন সব চমক নিয়ে আসছে যাতে অবিলম্বে ধারাবাহিকটিকে পুনরায় আগের অবস্থানে ফিরিয়ে দেওয়া সম্ভব হয়।

ধারাবাহিকের বর্তমান গল্প অনুযায়ী, একটি খুনের তদন্তে ব্যস্ত জগদ্ধাত্রী। এই তদন্তটা হয়তো তার জীবনের সবথেকে জটিল তদন্ত হতে চলেছে। সে যতই রহস্যের খোলাসা করতে চাইছে আরো বেশি করে রহস্যের মধ্যে জড়িয়ে যাচ্ছে। সে বারবার চেষ্টা করছে আসল গুঁড়িটাকে খুঁজে বের করার। এবার অনেক বড় একটা ক্লু পেল জগদ্ধাত্রী।

ধারাবাহিকের আজকের পর্বে দেখা যায়, জগদ্ধাত্রী কথা বলতে থাকে কল্যাণী দেবীর সাথে। সে কল্যাণী দেবীকে জিজ্ঞাসা করে, “আপনি কি কখনো প্রমিতা আর বিপদের মধ্যে ঝামেলা হতে শুনেছেন? কখনো কি এমন কিছু হয়েছে যেটা খুব দৃষ্টিকটু মনে হয়েছে আপনার? বা যেটা ভীষণ অস্বাভাবিক ছিল?” কল্যাণী দেবী বলেন তিনি কারোর ঘরে আরি পাতেন না। তাই এমন কিছুই তিনি শোনেননি আর কখনো তার কানে এমন কোনো বিষয় আসেনি। জগদ্ধাত্রী বুঝতে পারে কিছু তো একটা সমস্যা রয়েছে যেটা তার সামনে আনা হচ্ছে না।

Bengali television, Bengali Serial, Jagaddhatri, Zee Bangla, বাংলা সিরিয়াল, জি বাংলা, জগদ্ধাত্রী, বাংলা টেলিভিশন

এদিকে জগদ্ধাত্রী একটি বই পায় যেখানে লেখা ছিল দিদি আর জামাইবাবুকে গুঞ্জনের তরফ থেকে উপহার। এটা দেখে গুঞ্জরের উপর সন্দেহ শুরু হয় জগদ্ধাত্রীর। তার মনে হয়, গুঞ্জন বলেছিল ছবিতে যে রয়েছে সেটা তার দিদি নয়। তাহলে কি গুঞ্জন ভুল দেখেছে? সমস্ত রহস্যের খোলাসা করতে গুঞ্জনকে ডেকে পাঠায় জগদ্ধাত্রী। সাধু দাও বুঝতে পারে না ঠিকই চলছে সবার মধ্যে। গুঞ্জন এলে প্রথমেই তাকে ওই বইটা খুলে দেখায় সে।

আরো পড়ুন: দুষ্কৃতীদের কবলে পড়ে গুলিবিদ্ধ ফুলকি! মৃত্যু মুখে নায়িকার জীবন! পূরণ হলো শালিনীর স্বপ্ন

গুঞ্জন বলে এই বইটা সে তার দিদি আর জামাইবাবুকে দিয়েছিল। জগদ্ধাত্রী এবার একটা গোলক ধাঁধার মধ্যে পড়ে যায়। গুঞ্জন বলছে এটা সে তার দিদি জামাইবাবুকে দিয়েছিল এদিকে প্রমিতা আর দীপন গুঞ্জনের দিদি জামাইবাবু নয়! তাহলে এই বইটা সে কাকে দিয়েছিল আর প্রমিতাই বা আসলে কে? সবটা কেমন যেন ওলট-পালট হয়ে যায় তার। সাধু দা বলে আবার প্রথম থেকে তদন্ত শুরু করার কথা। অন্যদিকে কৌশিকী তার জেঠিমনির সঙ্গে চলে যায় গুঞ্জনের দিদি জামাইবাবুকে বিয়ের জন্য নেমন্তন্ন করতে। আর সেখানেই তাদের সাথে দেখা হয় কল্যাণী দেবীর।

Back to top button