দুষ্কৃতীদের কবলে পড়ে গুলিবিদ্ধ ফুলকি! মৃত্যু মুখে নায়িকার জীবন! পূরণ হলো শালিনীর স্বপ্ন

নায়িকাকে বাঁচাতে অনেক মেগা সিরিয়ালেই নায়কদের ঝাঁপিয়ে পড়তে দেখেছেন দর্শক মহল। তবে নায়কের জন্য নায়িকাকে এমন হিরোর মতন ঝাঁপিয়ে পড়তে খুব কম ধারাবাহিকই দেখিয়ে থাকে। আর ঠিক সেটাই দেখিয়ে বিশেষ ভাবে দর্শকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে জি বাংলার (Zee Bangla) বেঙ্গল টপার ধারাবাহিক ‘ফুলকি’ (Phulki)। ধারাবাহিকের নবাগতা নায়িকার সাথে নায়কের জুটি মন কেড়ে নিয়েছে ভক্তদের।

বর্তমানে এই ধারাবাহিকের গল্প অনুযায়ী, রোহিতের ওপর আবার মিথ্যে অভিযোগ আনা হচ্ছে আর এটা একেবারেই সহ্য করতে পারছে না ধারাবাহিকের নায়িকা ফুলকি। তাই সে আগের বারের মতন এবারেও সংবাদপত্রের সম্পাদকের সাথে দেখা করতে চলে যায় ছদ্মবেশে। পিয়ালের জামা পরে নকল গোঁফ লাগিয়ে চা ওয়ালা সেজে ঢুকে পড়ে সে। তবে ফুলকি হয়তো বুঝতেও পারেনি তার এই সাহসী পদক্ষেপ তার জীবনে স্বয়ং মৃত্যুকে আহ্বান জানাচ্ছে।

ধারাবাহিকের আজকের পর্বে দেখা যায়, চা ওয়ালা সেজে ঢুকে পড়ে ফুলকি ভাবতে থাকে আসল লোকটার কাছে কিভাবে পৌঁছবে সে। ঠিক সেই সময় দেখা যায় ওই সংবাদ পত্রের প্রধান মধুবন্তি তার এক সহকর্মীর সাথে কথা বলছে। তার সহকর্মী তাকে বলছে, এইভাবে বাইরে বেরোনো অনেকটা ঝুঁকির বিষয়। ওই গুন্ডা সব সময় নজর রেখেছে তার ওপর। সে যদি একবার আক্রমণ করে তাহলে কেউ তাকে বাঁচাতে পারবে না। কিন্তু মধুবন্তি অনেক সাহসী একজন মহিলা। সে বলে, সাংবাদিকদের ভয় পেলে চলে না।

তারপর তার সামনে চলে আসে ফুলকি আর তার সাথে কিছু কথা বলতে চায়। মধুবন্তি ভাবে সে হয়তো চা দিতে এসেছে। মধুবন্তি বলে তার চা লাগবে না। এবার মধুবন্তিকে আটকাতে গিয়ে পড়ে যায় ফুলকি আর তার চুলটা খুলে যায়। সবাই ভাবে ফুলকি হয়তো ওই গুন্ডার লোক। তখনই সমস্ত ভুল বোঝাবুঝি দূর করতে ফুলকি তার এভাবে আসার আসল কারণটা বোঝায় কিন্তু মধুবন্তি বলে সংবাদপত্রের লেখা বদলানো যায় না। এই বলে গাড়ি চড়ে সে বেরিয়ে যায়। রোহিত ডাকে ফুলকি সেই গাড়ির পেছনের ছুটছে। রোহিতও ফুলকির পিছনে ছুটিতে থাকে। মধুবন্তি গাড়ি না থামিয়ে আরো স্পিড বাড়িয়ে দেয়।

এরপর বেশ কিছু গুন্ডা মধুবন্তির রাস্তা আটকায় এবং তার দিকে বন্দুক তাক করে। ঠিক তখনই সেখানে পৌঁছে যায় ফুলকি। সে লড়াই করে সেই গুন্ডাগুলোর হাত থেকে মধুবন্তিকে বাঁচানোর চেষ্টা করে কিন্তু ফুলকির হাতে গুলি লেগে যায় আর ফুলকি অজ্ঞান হয়ে যায়। রোহিত তখন তাড়াতাড়ি এসে ওই গুন গুলোকে খুব পেটায় কিন্তু গুন্ডা গুলো পালিয়ে যায়। মধুবন্তি মনে মনে ভাবে যে মেয়েটার সাথে সে কথা বলতে চাইছিল না সেই মেয়েটাই আজ তার প্রাণ বাঁচাতে ছুটে এল। এরপর ফুলকিকে তাড়াতাড়ি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আগে থেকে একটু স্বাভাবিক অবস্থায় আসে ফুলকি। রোহিত তাকে বলে, সে যেন আর এরকম বাড়াবাড়ি না করে।

Back to top button