হীরের হারের লোভ দেখিয়ে ইশাকে জব্দ করলো পর্ণা! চিঠি দিতে গিয়ে ফ্যাসাদে পড়লো অনুভব!

বর্তমান দর্শক মহল নারী কেন্দ্রিক ধারাবাহিক দেখতে বেশ পছন্দ করেন। যে সমস্ত ধারাবাহিকের নায়িকাদের অত্যন্ত বুদ্ধিমতী এবং শক্তিশালী চরিত্র প্রদান করা হয় সেই সমস্ত ধারাবাহিক অল্প কিছুদিনের মধ্যেই দর্শকদের মনে জায়গা করে নেয়। এই মুহূর্তে নারী কেন্দ্রে ধারাবাহিক সম্প্রচারে এগিয়ে রয়েছে জি বাংলা (Zee Bangla)। আর এই জি বাংলার পর্দায় এমনই এক জমজমাট ধারাবাহিক হলো নিম ফুলের মধু (Neem Fuler Modhu)। বর্তমানে ধারাবাহিকের টিআরপি একেবারে তুঙ্গে।

এই মুহূর্তে ধারাবাহিকের গল্প অনুযায়ী, পর্ণা আর সৃজন ইশাকে টুপি পড়ানোর জন্য একে অপরের সঙ্গে তুমুল ঝামেলা ঝগড়াঝাটি করার অভিনয় করে চলেছে। কারণ ইশা এটাই চেয়েছিল। সে চেয়েছিল দুজনের সম্পর্ককে ভেঙে দেওয়ার। তাই ইশাকে ফাঁদে ফেলতে ঠিক তেমনটাই অভিনয় করছে পর্ণা আর সৃজন। এই মুহূর্তে তারা একটা ক্লাবে আসে সুন্দর করে ভ্যালেন্টাইনস ডে উদযাপন করতে। সেখানেই খাওয়া-দাওয়া করে বাড়ি ফেরার প্ল্যান করে তারা। প্ল্যানটা ছিল ইশার তবে বাড়ির প্রত্যেকে তাতে সায় দেয়।

ধারাবাহিকের আজকের পর্বে দেখা যায়, স্টেজে উঠে নাচ করছে অনুভব আর পর্ণা। সৃজন তাদের দুজনকে দেখে ভাবতে থাকে কত ভালো হতো যদি আজ পর্ণার সাথে সে সময় কাটাতে পারতো। অন্যদিকে অনুভবের সাথে নাচ করতে করতে পর্ণাও ভাবে যদি ইশা তাদের জীবনে না থাকতো তাহলে তাদের সম্পর্কটা আরো অনেক বেশি সুন্দর হতো। ঠিক তখনই সৃজনের গায়ে পড়তে থাকে ইশা। আর এই বিষয়টা একদম পছন্দ হয় না সৃজনের।

পর্ণা ভাবতে থাকে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ঈশাকে এখান থেকে সরাতে হবে। অন্য জায়গায় নিয়ে যেতে হবে। নইলে সৃজন মাথা গরম করে ফেলবে আর এমন একটা কান্ড ঘটবে যাতে সবটা ভেস্তে যাবে। এসব ভাবতে ভাবতে পর্ণা ইশাকে এক গুতো মেরে ফেলে দিয়ে সৃজনকে নিয়ে অন্য জায়গায় সরে পড়ে। সেখানে গিয়ে সৃজন আর পর্ণা ফোনে একটা রোমান্টিক গান চালিয়ে নাচ করতে থাকে। এরপর পর্ণা দেখতে পায় ইশা তাদের দেখেই আসছে এই দেখে তারা আবার ঝগড়া করার নাটক করতে শুরু করে।

এরপর গোটা দত্ত পরিবার সেখানে খেতে বসে পড়ে। খাবার-দাবার তাদের বেশ পছন্দ হয়েছে। এমন সময় পর্ণা অনুভবকে দিয়ে একটা চিঠি সিজারের কাছে পাঠায়। ধরা পড়তে পড়তে একটু জন্য বেঁচে যায় অনুভব এবং চিঠিটা সৃজন এর কাছে পৌঁছে দেয়। চিঠি লেখা ছিল, ইশাকে ডায়মন্ড নেকলেস দেওয়ার নাম করে আটকে রাখতে হবে। সৃজন বুঝতে পারি না ঠিক কি ভাবছে পর্ণা। তবে সে পর্ণার কথা মত কাজ করতে শুরু করে দেয়।

Back to top button