তিন্নির ছবিগুলোকে তরুূপের তাস বানিয়ে জগদ্ধাত্রীকে ব্ল্যাকমেল করছে তুষার তীর্থ, এবার কি করে কৌশিকী আর নিজেকে বাঁচাবে সে?

বর্তমানে জি বাংলা (Zee Bangla) চ্যানেলের একটি অন্যতম জনপ্রিয় ধারাবাহিক হল জগদ্ধাত্রী (Jagaddhatri)। প্রায় প্রতি সপ্তাহেই টিআরপি তালিকায় এই ধারাবাহিকের স্থান থাকে অনুরাগের ছোঁয়ার পরেই। চ্যানেল টপার হয় এই জগদ্ধাত্রী। শুরু হওয়ার পর থেকেই ধীরে ধীরে দর্শকদের মন জয় করে নিয়েছে এই ধারাবাহিক। অত্যাধুনিক এবং আকর্ষণীয় প্লট, রহস্য মিলেমিশে অনেক বেশি আকর্ষণীয় করে তুলেছে জগদ্ধাত্রীকে।

ধারাবাহিকের গল্প অনুযায়ী জগদ্ধাত্রী স্বামী হল স্বয়ম্ভু। তার জীবনের সবথেকে বড় ট্রাজেডি হলো নিজের পরিবারেই অনাহুত সে। নিজের আসল মা মারা যাওয়ার পর থেকে তাকে তার পরিবারের কেউই কখনো আপন করে নেয়নি। সবসময় কাজে লাগিয়েছে নিজের স্বার্থ পূরণের উদ্দেশ্যে। কিন্তু জগদ্ধাত্রী পাশে এসে দাঁড়িয়েছে তার।

সম্প্রতি সুরাহা হয়েছে স্বয়ম্ভুর মৃত্যু রহস্যের। জানতে পারা গিয়েছে আসল অপরাধী নাম। তাই বাড়ির সকলে ভয় পেয়ে রয়েছে হয়তো ফেঁসে যেতে পারে উৎসব। বাড়ির প্রত্যেকটি লোক তাদেরকে মেনে নিয়েছে কারণ তারা প্রত্যেকেই নিজেদের আপনজনকে বাঁচাতে চায়। এ দিনের পর্বে তেমনটাই দেখা যায়।

কিন্তু আর এক সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে জগদ্ধাত্রীর জীবনে। তুষার তীর্থ তলা পাত্র, যে বর্তমানে তার দল থেকে বহিষ্কৃত এবং সমাজে কোন ঠাসা সেই লোকটি বারবার জগদ্ধাত্রীকে ব্ল্যাকমেইল করে যাচ্ছে একটি বিষয়কে কেন্দ্র করে। তার দাবি যদি জগদ্ধাত্রী তার ছেলে টিটুকে অর্থাৎ তরুণ তীর্থ তলা পাত্রকে না ছেড়ে দেয় এবং যদি কৌশিকী মুখার্জী তার নিউজ পেপারে তাদের বিপক্ষে আর একটাও কথা লেখে তাহলে টিটুর কাছে তিন্নির যে প্রাইভেট ছবিগুলি রয়েছে সেগুলি সে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল করে দেবে।

যার ফল স্বরূপ তিন্নির কাছে আত্মহত্যার পথ বেছে নেওয়া ছাড়া আর কোন উপায় থাকবে না। বারবার জগদ্ধাত্রীকে এই বিষয়টা নিয়েই খোঁচা দিতে থাকে তুষার। বাধ্য হয়ে জগদ্ধাত্রী এবং স্বয়ম্ভু দুজন মিলে আসে কৌশিকী মুখার্জির ঘরে। এবং তাদের সাথে ঘটে চলা এই বিষয়টি স্পষ্ট ভাবে জানায় কৌশিকীকে। কৌশিকী কি পারবে এই সমস্যার সমাধান বের করতে?

Back to top button