“আমায় মালিনী আন্টি এইসব করতে বলেছিল”, সবার কাছে সব সত্যি ফাঁস করে দিল তুলি!

এখন জি বাংলার (Zee Bangla) পর্দায় সম্প্রচারিত একটি অন্যতম জনপ্রিয় ধারাবাহিক হচ্ছে মন দিতে চাই (Mon dite chai)। বর্তমানে গল্পের নায়ক সোমরাজকে মিথ্যে অপবাদ থেকে বাঁচাতে তিতির যে সমস্ত কাণ্ড ঘটাচ্ছে তাতে বেশ আগ্রহ বাড়ছে দর্শকদের। বেশ আকর্ষণীয় হয়ে উঠেছে এই সিরিয়াল।

বহুদিন ধরে সোমরাজের জীবন এলোমেলো করে দিয়েছিল তার সৎ মা এবং তুলি। মিথ্যে অপবাদের ভাগিদার করা হয়েছিল তাকে। সম্প্রতি জমে উঠেছে মন দিতে চাই ধারাবাহিকের বর্তমান এপিসোড গুলো। এইবার সব মিথ্যের উপর থেকে পর্দা সরিয়ে আসল সত্যি সামনে আনলো তিতির।

এত দিনের সমস্ত মিথ্যে অপবাদ, সবার সন্দেহ, মানসিক অশান্তি এই সমস্ত কিছু থেকে মুক্তি পেল সোমরাজ। তবে এই বিষয়ে নিজের জীবন বাজি রেখে তাকে সাহায্য করেছে তিতির। আজ যদি তিতির তার পাশে না থাকতো তাহলে সোমরাজ এত তাড়াতাড়ি নিজেকে প্রমাণ করতে পারত না।

হয়তো মিথ্যের জালে জড়িয়ে সারা জীবন বাঁচতে হতো তাকে। তিতিরের এই উপকার সোমরাজকে ঋণী করেছে। তাই সবটা প্রমাণ করার পর সোমরাজ সবার প্রথমে তিতিরকে তার পাশে থাকার জন্য ধন্যবাদ জানায়। মনে মনে খুব খুশি হয় তিতির। এবার শুধু মালিনীর মুখোশ খোলার পালা।

তুলি নিজেকে অনেক ভাবে বাঁচানোর চেষ্টা করলেও শেষ পর্যন্ত তার প্রেগনেন্সি টেস্টের রিপোর্ট প্রমাণ করে দেয় যে এতদিন অব্দি তুলির বলা সমস্ত কথাই ছিল মিথ্যে। তুলি যে এত দূর অব্দি যেতে পারে এটা বিশ্বাসই করতে পারছে না তার বাড়ির লোকজন। অন্যদিকে সত্যিটা তুলির মুখ দিয়ে বার করানোর জন্য পুলিশের ভয় দেখায় তিতির।

শেষ পর্যন্ত পুলিশের ভয়ে মালিনীর নাম বলতে যায় তুলি। তখনই মালিনী তুলিকে এক চড় মারে আর বলে “মিথ্যা কথা বলার জায়গা পাওনা?” এরপর আড়ালে তুলিকে বলে যদি তার নাম প্রকাশ্যে আসে তাহলে মালিনী তাকে শেষ করে দেবে। ভয়েতে সবটা নিজের ঘাড়ে নিয়ে নেয় তুলি আর ক্ষমা চেয়ে নেয় সবার থেকে। শেষ পর্যন্ত মালনীর কুকীর্তি চাপা পড়ে যায়। এরপর তিতির মালিনীকে বলে, এটাই তার শেষ সুযোগ নিজেকে শুধরে না নিলে এরপর আর চুপ থাকবে না তিতির।

Back to top button