মারা গেল স্বামী, তবে স্ত্রী-এর মধ্যে কোন তাপ উত্তাপ নেই! নায়িকাকে সবার থেকে আলাদা দেখাতে গিয়ে ট্রোলের মুখে জগদ্ধাত্রী

জি-বাংলার একটি জনপ্রিয় ধারাবাহিক হলো ‘জগদ্ধাত্রী’। কিছুদিন আগে অবধিও অনুরাগের ছোঁয়ার সাথে জোরদার প্রতিযোগিতা চলতো এই ধারাবাহিকের। এই সিরিয়ালে মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করছেন অঙ্কিতা মল্লিক এবং সৌম্যদীপ মুখার্জী (Soumyadeep Mukherjee)। বেশ কিছু সময় ধরে বাংলা টপার হওয়ার পর বর্তমানে টিআরপির তৃতীয় স্থানে রয়েছে এই ধারাবাহিক।

এই ধারাবাহিকের মূল গল্প আবর্তিত হয়েছে নায়িকা জগদ্ধাত্রীকে নিয়ে। এইখানে সে একজন স্পেশাল ফোর্স পুলিশ অফিসার। তার অ্যাকশন প্রথম থেকেই মন ছুঁয়ে গিয়েছে দর্শকদের। ৮ থেকে ৮০ সবাই তার ভক্ত। কিন্তু সম্প্রতি ধারাবাহিকের জনপ্রিয়তায় ভাটা পড়েছে। প্রথম স্থান থেকে দ্বিতীয় এবং দ্বিতীয় স্থান থেকে বর্তমানে তৃতীয়ত চলে এসেছে এই ধারাবাহিক।

এই মুহূর্তে ধারাবাহিকের ট্র্যাক অনুযায়ী গুন্ডাদের হাতে মারা গিয়েছে স্বয়ম্ভু। কিছুদিন আগেই দর্শকরা দেখেছেন পিছন থেকে কয়েকজন গুন্ডা গুলি করে গল্পের নায়ককে। সেখানেই রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে লুটিয়ে পড়ে সে। সেখানে গিয়ে পৌঁছে জগদ্ধাত্রী তবে ততক্ষণে পরিস্থিতি হাতের বাইরে চলে গিয়েছে। হসপিটালে ভর্তি করা হলে ডাক্তার জানায় তার অবস্থা খুবই খারাপ এবং তার কিছুক্ষণ বাদেই মারা যায় গল্পের নায়ক।

এতক্ষণ অব্দি সবটাই দেখছিলেন দর্শকরা কিন্তু তারপর একটি বিষয় নিয়ে বেশ সমালোচনার শুরু হয় দর্শক মহলে। অন্যান্য ধারাবাহিকে দেখা যায় নায়ক মারা গেলে কেঁদে লুটিয়ে পড়ছে নায়িকা। কেউ মানতে চায় না যে তার প্রিয় মানুষ মারা গিয়েছে। আবার কেউ শোকে দুঃখে পাগল হয়ে যায়। আরো অনেক ভিন্ন ভিন্ন কাজকর্ম করতে দেখা যায় নায়িকাদের। যার মধ্যে দিয়ে তারা প্রকাশ করে যে তারা নায়ককে ঠিক কতটা ভালোবাসতেন।

কিন্তু এই ধারাবাহিকে তার বিন্দুমাত্র প্রকাশ পায়নি। দর্শকদের মতে স্বামী মারা গেলে যেখানে নায়িকাদের সমগ্র জীবন তোলপাড় হয়ে যায় সেখানে জগদ্ধাত্রীদের একটি চুলও বাঁকা হয়নি। একদম সুস্থ স্বাভাবিক পরিপাটি অবস্থায় রয়েছে সে। এতটা শক্তিশালী কী করে হয়ে গেল জগদ্ধাত্রী? আর এই নিয়েই সমালোচনার মুখে পড়েছে এই ধারাবাহিক। জগদ্ধাত্রীকে নিয়ে হাসাহাসি হচ্ছে নেটিজেনদের মধ্যে। ঠিকই তো এতটা স্বাভাবিক কিভাবে আছে সে? তবে কি স্বয়ম্ভু এখনো বেঁচে রয়েছে? আসল রহস্য জানতে চোখ রাখতে হবে জগদ্ধাত্রী ধারাবাহিকে।

Back to top button