আবার অনুরাগের ছোঁয়াতে আগের আমেজ ফিরে পাচ্ছে দর্শক, ভুল বোঝাবুঝি, দূরত্ব থাকলেও সূর্য দীপার সুন্দর মুহূর্ত উপভোগ করছে তারা

স্টার জলসার (Star Jalsha) ‘অনুরাগের ছোঁয়া’ (Anurager Chowa) ধারাবাহিকটি প্রতিদিন দর্শকের জন্য নতুন কিছু নিয়ে আসে। একই ট্র্যাকে এগিয়ে চলা গল্পের মাঝেও প্রতিদিন থাকে ছোট্ট টুইস্টের ছোঁয়া। সেই কারণেই হয়ত ধারাবাহিকটি দর্শকের মন জুড়ে রয়েছে। একটুও মিস করেননা দর্শক প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময়ে টেলিভিশনের পর্দায় চোখ রাখেন। যার ফলাফল টিআরপি তালিকায় স্পষ্ট পরিলক্ষিত।

ইদানিং গল্পে এসেছে কিছুটা পরিবর্তন। সূর্য আর দীপা একে অপরের সাথে এক ঠান্ডা লড়াইতে মেতেছে। সূর্য দীপাকে দোষী সাজাতে ব্যস্ত আর দীপা নিজেকে প্রমান করতে। তাদের এই ঝগড়া, অভিমান, ঘৃণার মাঝে যে ছোট শিশু দুটো পিষছে, তাদের শৈশব নষ্ট হচ্ছে সেদিকে দেখেও যেন তাদের নজর পড়ছেনা। কাজেই সোনা আর রুপা এই বয়সেই অনেক কিছুর সম্মুখীন হয়েছে।

একেবারে হৈ হৈ করে কেটে গেলো অনুরাগের ছোঁয়ার এদিনের পর্ব। এই পর্বের মেইন টপিক ছিল উর্মির জন্মদিন। আর সেই নিয়েই মেতে ছিল বাড়ির সকলে। সূর্যর বোন অনেক যত্ন করে তৈরি করে কেক তাকে সাহায্য করে দুই পুচকি সোনা আর রুপা। কেক আসতেই সেটাকে কাটার জন্য উঠে পড়ে লাগে জয়। বহুদিন পর এমন ঝলমলে একটা আবহাওয়া তৈরি হয়েছিল সেনগুপ্ত পরিবারে।

এর মাঝেই সেখানে এসে হাজির হয় উর্মির মা এবং দিদা। বাড়ির কেউ তাদেরকে সহ্য করতে পারে না উর্মি তাদের দেখা মাত্রই বাড়ি থেকে বেরিয়ে যেতে বলে। এমনকি সোনাও বলে ওঠে তোমরা পচা দিদা। তোমরা এখান থেকে চলে যাও তোমরা আবার আমাকে পচা পচা কথা শোনাবে। সবার বিপক্ষে গিয়ে দীপা প্রত্যেকে বোঝায় যে মা এতদিন ধরে সন্তানকে আগলে রেখেছি জন্মদিনের দিন সেই মা থাকবে না এটা কি হয়। দীপার কথাতেই তাদের দুজনকে বাড়িতে রাখতে রাজি হয় প্রত্যেকে।

এরপর বাড়ির প্রত্যেকে উর্মিকে কিছু না কিছু উপহার দেয়। উর্মি ও তাতে খুব খুশি হয়। এরপর তারা সবাই একসাথে খেতে বসে, জয় তার দিদিদের সাথে পরিকল্পনা করে সূর্য আর দীপাকে পাশাপাশি খেতে বসায়। এর মাঝেই দুষ্টুমি করে রুপা সোনার পথ থেকে খাবার তুলে নেয়। এমন করেই হাসি ঠাট্টা আনন্দ ভালবাসা দুষ্টুমি, সবকিছুর মধ্যে দিয়ে অতিবাহিত হয় উর্মির জন্মদিন। এ দিনের পর্বে ছিল না কোন অপমান হিংসা প্রতিশোধ। চারিদিকে বিরাজ করছিল শুধুই স্নিগ্ধতা।

Back to top button