আই কার্ড দেখাতে গিয়েই ধরা পড়ে গেল তরঙ্গ! অন্যদিকে পান খাইয়ে কৃষ্ণাকে বশ করলো ইশা!

বর্তমানে বেশ বড়সড় রহস্যে ভরপুর হয়ে উঠেছে জি বাংলার (Zee Bangla) নিম ফুলের মধু (Neem Fuler Modhu) ধারাবাহিকে। আর সেই রহস্যের কিনারা করার চেষ্টা করছে ধারাবাহিকের নায়িকা পর্ণা। আজ পর্যন্ত যে যে বিষয়গুলোতে পর্ণার কটকা লেগেছে বা ভয় করেছে সেই সমস্ত বিষয়গুলি দত্ত বাড়ির সর্বনাশের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই এইবারটাও কিছুতেই এড়িয়ে যেতে পারছে না সে।

বর্তমান গল্প অনুযায়ী, পর্ণা সৃজনের জন্য একটা সুন্দর উলের টুপি বানিয়ে দেয়। সেটা পেয়ে সৃজন ভীষণ খুশি হয়ে যায়। কিন্তু এটাই যে তার জীবনের অনেক বড় কাল হতে চলেছে সেটা তখন অবদি বুঝতে পারেনি নায়িকা পর্ণা। অন্যদিকে আসন্ন নতুন গেস্টকে নিয়ে বেশ চিন্তায় পড়ে যায় সে। সারাক্ষণ বিপদের আশঙ্কা করতে থাকে পর্ণা।

ধারাবাহিকের আজকের পর্বে দেখা যায়, ফ্রেশ হতে গিয়ে কৃষ্ণার সাথে ধাক্কা লাগে পর্ণার, যার ফলে সমস্ত বাসন হাত থেকে পড়ে যায় কৃষ্ণার। মনে মনে গালমন্দ করতে করতে বাসন গুলো যখন সে তুলছিল তখনই মৌমিতা এসে একটা পান দেয় কৃষ্ণাকে। মৌমিতা বলে এটা তাকে ইশা পাঠিয়েছে। আসলে আরো একবার কৃষ্ণাকে নিজেদের দলে টানতে চাইছিল সে। মৌমিতা অনুভব আর পর্ণার সম্পর্কে অনেকগুলো কথা বলতে এলে কৃষ্ণা খুব বিরক্ত হয় কারণ ইতিমধ্যেই এই কথাগুলো বলার জন্য তার বাবু তার সাথে বাজে ব্যবহার করেছে। তাই বিরক্ত হয়ে সেখান থেকে চলে যায় কৃষ্ণা। তাকে আর হাত করা হয় না মৌমিতার।

এদিকে রাত্রিবেলা খাবার টেবিলে হাজির হয়েছে সবাই। সেখানে টুপি পরে হাজির হয়েছে সৃজনও। টুপি পড়ার মতন ঠান্ডা নেই তাই সবাই দুজনকে টুপি পড়ার কারণ জিজ্ঞাসা করলে রুচিরা বলে, আসলে ওই টুপিটা বানিয়ে দিয়েছে পর্ণা। তাই সৃজন ওটা খুলতে চাইছে না। পর্ণা বারবার ওটা খুলে রাখার ইঙ্গিত দিলেও সৃজন সবার সামনেই বলে সে খুলবে না। সৃজন এত রোমান্টিক হয়ে গেছে দেখে বেশ ভালো লাগে ছোটকার। সমস্ত ঘটনা অয়ন মৌমিতা জানায় ইশাকে। এসে তখন মৌমিতাকে আর একটা একই রকম টুপি বানিয়ে ফেলতে বলে। পরের দিন সেই টুপি ইশাকে দিতে গেলে সে বলে, এটা অনুভবের কাছে পাঠিয়ে দূরে সরিয়ে দেবে সৃজন পর্ণাকে।

এদিকে দেখতে দেখতে চলে এসেছে তরঙ্গ দত্ত। তার সাথে রয়েছে তার স্ত্রী। স্ত্রীর চোখে সানগ্লাস এবং মুখ চাদর দিয়ে ঢাকা। সবটাই বেশ সন্দেহজনক। স্ত্রী অসুস্থ বলে আগেই তাকে ঘরে পাঠিয়ে দেয় তরঙ্গ। এরপর কেবল নিজের আই কার্ড দেখায়। তার স্ত্রীর আই কার্ড দেখতে চাইলে সেটা দেখাতে পারে না তরঙ্গ দত্ত। আর এখান থেকেই সন্দেহ আরো গাঢ় হয় পর্ণার মনে। সেই রুচিরাকে বলেছিল মহিলার মুখটা যেন যেকোন ভাবে দেখে নেয় সে। সেটা সম্ভব হয়নি তবে মহিলা হিন্দিতে কথা বলছিলেন।

Back to top button