মেয়েকে খুঁজতে মুখার্জী বাড়িতে হাজির সমরেশ, রাজনাথের কাছে উৎসবের কুকীর্তি ফাঁস করে দিল কৌশিকী!

একজন নিষ্ঠাবান পুলিশ অফিসারের সাহসী গল্প নিয়ে শুরু হয়েছিল জি বাংলার (Zee Bangla) জগদ্ধাত্রী (Jagaddhatri) ধারাবাহিক। অল্প সময়ের মধ্যেই দর্শকদের মন জয় করে নিয়েছে এই ধারাবাহিক। দর্শকদের প্রিয় হয়ে ওঠায় মেগার টিআরপিও তুঙ্গে। চলতি সপ্তাহেই টিআরপি তালিকার প্রথম স্থান অধিকার করেছে এই মেগা। খুব তাড়াতাড়ি ধারাবাহিকে আসতে চলেছে নতুন মোড়। জগদ্ধাত্রী পাল্টে দেবে খেলা।

বর্তমানে গল্প অনুযায়ী, এত দিন ধরে উৎসবের যে সমস্ত অন্যায় করছিল সেই সব কারসাজি ধরে ফেলছে জগদ্ধাত্রী আর স্বয়ম্ভু। এইবার সেই সব কিছুর শাস্তি দেওয়ার পালা। এক এক করে জমতে জমতে পাপের ঘরা পূর্ণ হয়েছে তার। উৎসব এবং তার সাথে যারা যারা জড়িত সবাইকে ধরার উপায় বার করে ফেলেছে জগদ্ধাত্রী।

ধারাবাহিকের আজকের পর্বে দেখা যায় কাঁকনকে খুঁজতে মুখার্জী বাড়িতে চলে এসেছে সমরেশ অর্থাৎ কাঁকনের বাবা। সে প্রশ্ন করে, কোনো কিছু না জানিয়ে কেন তার মেয়েকে হস্টেলে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে? এত বড় বাড়িতে কি ওর জায়গা হয়নি? রাজনাথ তাকে স্পষ্ট জানিয়ে দেয়, ওই বাচ্চাটার বিষয়ে সে কোনদিনও মাথা ঘামায়নি তাই এখনো তার প্রয়োজন নেই কাঁকন যেখানে আছে ভালো আছে।

তখন সমরেশ বলে, সে কাঁকনের বাবা, তাই তার অধিকার আছে সব কথা জানার। তখন সেখানে আসে কৌশিকীর বাবা আর তিনিও একই কথা বলেন। আর বার বার উৎসবের কাছে কাঁকন কোন হোস্টেলে আছে সেই খবরটা জানতে চায়। কিন্তু উৎসব কোনো মতেই সেটা বলতে চায় না। আর পর সমরেশ আইনের ভয় দেখালে, তাকে ঘাড় ধাক্কা দিয়ে বের করে দেয় বাড়ির সবাই।

এরপর রাজনাথকে ফোন করে কৌশিকী মুখার্জী। সে বলে, “আমি আপনার শুভাকাঙ্ক্ষী বলছি। আপনার ছেলে বৌমা কোম্পানির টাকা নয় ছয় করছে, সেদিকে খবর রাখেন? সময় থাকতে আটকান নইলে সর্বনাশ হবে কোম্পানির।” কথাটা শুনে রাজনাথ তাড়াতাড়ি বক্সিকে ফোন করে আর বলে, উৎসব আর মেহেন্দি কোম্পানি থেকে কতো টাকা তুলেছে সেই সব ডিটেলস সে যেনো রাজনাথকে পাঠায়। এদিকে কৌশিকী বুঝতে পারে কাঁকনের তার বাবার জন্য মন খারাপ করছে। তাই কাঁকনকে তার বাবার কাছে পাঠানোর ব্যবস্থা করে কৌশিকী।

Back to top button