গিনিকে বিয়ে না করলে রূপের সকল কারসাজি ফাঁস করবে তার বাবা! এবার কি তবে বাবার হাতেই জব্দ হবে রূপ?

গিনির সাথে যদি অন্যায় করে তাহলে রূপকে নিজের সকল সম্পত্তি থেকে বেদখল করবে রূপের বাবা! কী হতে চলেছে আগামী দিনে?

বর্তমানে জি বাংলা (Zee Bangla) চ্যানেলের একটি অত্যন্ত জনপ্রিয় এবং আকর্ষণীয় ধারাবাহিকে পরিণত হয়েছে ইচ্ছে পুতুল (Ichhe Putul)। দিন দিন ধারাবাহিকের গল্প আরো অনেক বেশি আকর্ষণীয় হয়ে উঠছে। ভক্তরা কৌতূহল প্রকাশ করছে ধারাবাহিকটিকে নিয়ে। সম্প্রতি মেঘের জীবনে এসেছে অনেক বদল আর সেটাই উপভোগ করছেন দর্শক মহল।

ধারাবাহিকের গল্প অনুযায়ী সম্প্রতি নীলের একটি অ্যাক্সিডেন্ট হয়। অনিন্দ্য মেঘকে সেই বিষয়ে জানাতে এলে মেঘ অনেক কান্নাকাটি করে কিন্তু নীলকে দেখতে যেতে চায় না সে। কারণ সেখানে গেলে নীলের বাড়ির লোক তাকে অপমান করতে অনেক বেশি ব্যস্ত হয়ে যাবে। একদম সঠিক সিদ্ধান্ত নেয় মেঘ। কিন্তু মেঘের না যাওয়া নিয়েও যটলা পাকায় মীনাক্ষীর প্যাঁচানো মন।

নীলের কাকার জেরার মুখে ময়ূরী

নীলের কাকা হঠাৎই ময়ূরীকে জিজ্ঞাসা করে যে সে যখন জানতে পেরেছিল নীলের এক্সিডেন্টের কথা তখনই কেন বাড়িতে ফোন করে সবটা জানায়নি। এই হসপিটালে আনার পর কেন ফোনটা করেছে। উত্তরে ময়ূরী প্রথমে একটু থতমত খেয়ে যায়। কিন্তু পরে সে ঠিকই ইনিয়ে বিনিয়ে বিষয়টিকে এড়িয়ে যায়।

বিয়ে না করলে সম্পত্তি থেকে বেদখল হবে রূপ

অন্যদিকে দেখা যায় বাড়ি ফিরে রূপ তার বাবার উপর চোটপাট করতে থাকে। সে তার বাবাকে বলে দেয় এই বিয়ে সে করতে পারবে না। রূপের বাবা তাকে বলে যদি বিয়ে না করে তাহলে তার সমস্ত ক্রেডিট কার্ড হাত খরচা আর তার বাবা দেবে না। তার ব্যাঙ্কে পঞ্চাশ হাজার টাকা দেবে আর সেই টাকা দিয়ে রূপকে কিছু করে খেতে হবে। রূপ তাতে রাজি হলেও আদতে সে কি করবে সেটা ভবিষ্যৎই বলবে।

মেঘের হয়ে মীনাক্ষীকে উচিত জবাব দিল অনিন্দ্য

অন্যদিকে মেঘের বাবা নীলের খোঁজ নিতে গেলে জানতে পারেন নীল এখন ঠিক আছে তাকে ছেড়ে দেওয়া হবে। কিন্তু নীলের মা মেঘের বাবাকে তার শিক্ষা নিয়ে প্রশ্ন করে। বিপদের দিনে ঠিক কোন শিক্ষায় শিক্ষিত হলে একটা মানুষ একটা মানুষের পাশে না দাঁড়িয়ে থাকতে পারে। তখন মেঘের বাবা মীনাক্ষীকে উচিত জবাব দেয়। সে বলে মেঘ যদি আজকে এখানে আসতো তাহলে মীনাক্ষী কি তার সঙ্গে ভালো ব্যবহার করতেন বা বিষয়টাকে ভালো চোখে দেখতেন। কথাটা শোনার পর আর কোন কথা বেরোয় না নীলের মায়ের মুখ দিয়ে।

Back to top button