পর্ণার মাথার তার কাটতেই বটু আর তিন্নির সমস্ত চাল ধরে ফেলল সে! সেই ভয়ে গুটিয়ে গেল তিন্নি

সৃজন পর্ণার ডিভোর্স করিয়ে তিন্নির সাথে বিয়ে দেয়ার প্ল্যান! বটু আর তিন্নির সমস্ত কারসাজি ধরে ফেলল পর্ণা, ভয়ে গুটিয়ে গেল বটব্যাল

জি বাংলায় (Zee Bangla) সম্প্রচারিত ধারাবাহিক (Bengali Serial) গুলির মধ্যে একদম সাদামাটা পারিবারিক কাহিনী নিয়ে তৈরি ধারাবাহিকটি হচ্ছে নিম ফুলের মধু (Neem Phuler Modhu)টিআরপিতে (TRP) ধারাবাহিকটির অবস্থান বেশ নজর কাড়া। দিন দিন ধারাবাহিকটির জনপ্রিয়তা আরো অনেক বেশি বৃদ্ধি পাচ্ছে।

সম্প্রতি ধারাবাহিকের নায়িকা পড়েছে চরম বিপদে। সৃজনকে বিপাশা সেজে চাকরি দেয় পর্ণা। সবকিছু বেশ ভালই চলছিল। হঠাৎ করে সব কেমন ঘেঁটে গেল। আর এর পিছনে রয়েছে তিন্নি আর বটব্যাল। এই দুজনে মিলে চক্রান্ত করে সবার সামনে পিপাসার আসলে কে তা বুঝিয়ে দেয়। যার দরুন বর্তমানে পর্ণার উপর ভীষণ রেগে গিয়েছে বাড়ির প্রত্যেকে।

কৃষ্ণা ঠিক করে এই মেয়েকে আর কোনোভাবেই সৃজনের বউ হিসেবে মেনে নেবে না সে। তাই কথা তোলে ডিভোর্সের। সৃজনও রাজি হয়ে যায় তাতে। কিন্তু এর মাঝে একটা ব্যাঘাতের সৃষ্টি হয়। সৃজন এর বাবা কৃষ্ণাকে বলে পর্ণার ১০ লক্ষ টাকা শোধ না করলে এই ডিভোর্স হবে না। তখন থেকে কৃষ্ণা উঠে পড়ে লেগেছে সেই ১০ লক্ষ টাকা শোধ করার চেষ্টায়।

কৃষ্ণা নিজের গয়না বিক্রি করে সেই টাকা যোগাড় করতে গেলে তাতে ব্যর্থ হয় ফলে কিভাবে সেই টাকাটা শোধ করবে সেই নিয়ে চিন্তায় পড়ে যায়। এমন সময় বটব্যাল এসে বলে সে ১০ লক্ষ টাকা দেবে। প্রথমে সৃজন সেই টাকা নিতে অস্বীকার করলেও পরে কৃষ্ণা জোর করায় সে রাজি হয়ে যায়। এই সবটাই দরজার বাইরে থেকে দেখে ফেলে চয়ন আর বর্ষা।

তারা সব কিছু এসে পর্ণাকে জানিয়ে দেয়। সব শোনার পর সে ছুটে যায় সৃজনের ঘরে আর বলে এই টাকা যেন সৃজন কোনোভাবেই না নেয়। তার পাশাপাশি বটব্যাল এবং তিন্নিকেও একগাদা কথা শুনিয়ে দেয়। এর পাশাপাশি পর্ণা আরো বলে, সে তিন্নির সমস্ত মতলব জেনে গিয়েছে। এই শুনে ভয় পেয়ে যায় তিন্নি। তারা ভাবতে থাকে তাহলে কি আসল সত্যিটা জেনে গেল পর্ণা? যদি সত্যি করেই সমস্ত সত্যিটা পর্ণা জেনে যায় তাহলে কেমন লাগবে দর্শকের?

Back to top button