অত্যাচারিত হতে হতে দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে মেঘের, একজন শান্ত শিষ্ট নম্র স্বভাবের মেয়ে থেকে প্রতিবাদী হয়ে উঠেছে সে

জি বাংলার (Zee Bangla) ধারাবাহিক ইচ্ছে পুতুল (Ichhe Putul)। কয়েক মাস হল শুরু হয়েছে এই ধারাবাহিকের সম্প্রচার। শুরুতে অন্য এক জনপ্রিয় ধারাবাহিকের অনুকরণ বলে অনেক সমালোচনার সম্মুখীন হতে হয় এই ধারাবাহিককে। কিন্তু পরবর্তীতে এই ধারণাকে ভুল প্রমাণিত করেছে এই ধারাবাহিক। এক সহজ, সরল মেয়ের গল্প বলছে এই ধারাবাহিক।

এই মেয়েটার জীবন জুড়ে শুধুই না পাওয়ার যন্ত্রণা, আর একটু ভালবাসার প্রতিক্ষা। পরিবারে সে ছোট, দিদি ও মায়ের জোটের মাঝে সে ধোপে টেকে না। দিদিকে রক্ত দেওয়ার জন্যই তাঁর জন্ম। তবে দ্বিতীয় সন্তানের প্রতি এই অবহেলা মেনে নিতে নারাজ তাঁর বাবা। চোখে হারায় সে তাঁর মেয়েকে। মেঘের বাবা মেঘকে শিখিয়েছে সর্বদা অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে।

এ দিনের পর্বে কথা প্রসঙ্গে নীলকে মেঘ বলে নীলের করা অভদ্রতামি যদি পুনরাবৃত্তি হয় তাহলে মেঘ আর বিষয়টা চুপ করে মেনে নেবে না। এমন কথা শুনে নীলের মনে হয় মেঘ হুমকি দিচ্ছে। তাই নীলও মেঘকে বলে আজকাল মেঘ কথায় কথায় হুমকি দিচ্ছে। তখন মেঘ নীলকে বলে, “হুমকিটা তো উল্টো দিক থেকেও আসছে।”

“ইউনিভার্সিটি ছেড়ে দেওয়ার একটা প্রচ্ছন্ন হুমকি। শুধু তফাত এটাই যে আগে হলে মেঘ সব কিছু মুখ বুঝে মেনে নিত কিন্তু এখন মেঘ আর চুপ নেই। নিজেকে সম্পূর্ণ বদলে ফেলেছি। এই কয়েকদিনে আমি যে পরিমাণ চিৎকার করেছি বিগত ১০ বছরেও আমি সেটা করিনি। তুমি আমায় বদলে যেতে বাধ্য করেছ।”

মেঘের এই পরিবর্তনে আর কেউ খুশি হোক বা না হোক দর্শকরা ভীষণ সন্তুষ্ট। তারা সবসময় এরকমই একটা প্রতিবাদী মেঘকে দেখতে চেয়েছিল। যে চুপ করে সমস্ত অন্যায় সহ্য না করে অন্যায়ের বিরুদ্ধে লড়াই করবে। প্রত্যেকের অপমানের উপযুক্ত জবাব দেবে। মেঘের এই প্রতিবাদী ভাবমূর্তি ধারাবাহিক থেকে দর্শকদের মাঝে অনেক বেশি আকর্ষণীয় করে তুলছে।

Back to top button