বৈদেহিকে ফাঁসিয়ে দিল দিব্যা সেন, চাপে পড়ে অফিস থেকে পালিয়ে গেল মেহেন্দি!

বর্তমানে জি বাংলার (Zee Bangla) সবথেকে জনপ্রিয় ধারাবাহিক বলতে যার কথা প্রথমেই মাথায় আসে সেটি হলো জগদ্ধাত্রী (Jagaddhatri) যদিও এই মুহূর্তে টিআরপি তালিকার তৃতীয় স্থানে রয়েছে এই ধারাবাহিকের নাম। প্রত্যেকদিন প্রতিটি পর্বে একটি একটি করে রহস্যের সমাধান করছে জগদ্ধাত্রী। আর ঢাল হয়ে তার পাশে দাঁড়িয়ে রয়েছে স্বয়ং কৌশিকী মুখার্জী।

ধারাবাহিকের বর্তমান প্লট অনুযায়ী, সম্প্রতি বাড়ি ফিরে এসেছে বৈদেহি মুখার্জী। কিন্তু তিনি কাউকেই বলেননি, কোথায় এতদিন লুকিয়ে ছিলেন তিনি। তবে এই ঘটনায় জগদ্ধাত্রীর তদন্তে বেশ সাহায্য মেলে। অন্যদিকে সমস্ত দায়িত্ব বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য কৌশিকী অফিসে নিয়ে যায় মেহেন্দিকে। কিন্তু সেখানে গিয়েই সমস্ত দম ফুরিয়ে যায় তার।

ধারাবাহিকের আজকের পর্বে দেখা যায়, এত কাজ দেখে মেহেন্দির মাথা ঘুরে যাওয়ার জোগাড়। সে বৈদেহি মুখার্জীকে ফোন করে বলে, “বাইরে থেকে দেখে সবকিছু অনেক সহজ মনে হয়েছিল, কিন্তু এসব এত সহজ নয়। কেউ এডিটোরিয়াল ধরিয়ে দিয়ে যাচ্ছে আবার কেউ পেমেন্টের কথা বলছে। শুনছি নাকি মন্ত্রী আসবে। আমি কি করবো কিছু বুঝেই উঠতে পারছি না। সব কেমন গন্ডগোল হয়ে যাচ্ছে।” বৈদেহি মুখার্জী মেহেন্দিকে সাহস দেয় আর চেয়ারে গিয়ে বসতে বলে।

মেহেন্দি যেই চেয়ারে বসতে যায় অমনি সেখানে চলে আসে সাধু বটব্যাল এবং তার গোটা ডিপার্টমেন্ট। তারা বলে বৈদেহি মুখার্জীর কেসের জন্য কৌশিকী মুখার্জিকে ডিপার্টমেন্টে যেতে হবে এবং তার এই ঘরটা সিল করে দেওয়া হবে। অর্থাৎ মেহেন্দির চেয়ারে বসার স্বপ্ন সেই দিনটার মত ঘুচে যায় এবং তাকে চলে যেতে হয় মন্ত্রী মহোদয়ের সঙ্গে দেখা করতে। এরপর জগদ্ধাত্রী ফোন করে কৌশিকীকে বলে সব কাজ ঠিকঠাক মত হয়েছে তো? অর্থাৎ এই গোটা বিষয়টাই তাদের দুজনের প্ল্যান ছিল যাতে মেহেন্দি চেয়ারে বসতে না পারে।

এর মাঝে দিব্যা সেন ফোন করে বৈদেহি মুখার্জীকে। ফোন করে সে এক প্রকার ফাঁসিয়ে দেয় বৈদেহি মুখার্জীকে। ভীষণ ভয় পেয়ে চিৎকার করতে থাকে বৈদেহি। ঠিক সেই সময় ঘরে চলে আসে রাজনাথ আর নিজের স্ত্রীকে প্রশ্ন করে কেন সে দিব্যা সেনের সাথে কথা বলছে। বৈদেহি মুখার্জী কিছু বলে ওঠার আগেই কৌশিকী আর জগদ্ধাত্রী দুজন মিলে রাজনাথের সামনে বৈদেহি মুখার্জীর আসল মুখোশ টেনে খুলে দেয়। এতদিন ধরে সে যা যা করে এসেছে সব উদঘাটন করে।

Back to top button