কোম্পানি নিজের হাতে নিয়ে মেহেন্দিকে নিজের জায়গা বুঝিয়ে দিল কৌশিকী, অন্যদিকে তুষার তীর্থকে জব্দ করতে জগদ্ধাত্রীর ঘুটি দিব্যা

বর্তমানে জি বাংলা (Zee Bangla) চ্যানেলের সবচেয়ে জনপ্রিয় ধারাবাহিক হচ্ছে জগদ্ধাত্রী (Jagaddhatri)। চলতি সপ্তাহেও টিআরপি তালিকায় চ্যানেল টপার হয়েছে এই ধারাবাহিক। দর্শকদের মাঝে এই ধারাবাহিকের জনপ্রিয়তা আকাশ ছোঁয়া। অনুরাগের ছোঁয়া ধারাবাহিকের পরেই যদি কোন ধারাবাহিকের নাম আসে তাহলে সেটা হল জগদ্ধাত্রী।

এই দিনের পর্ব দেখে ভীষণ খুশি দর্শক মহল। এই পর্বে মেহেন্দি একদম উচিত শিক্ষা পেল। দর্শকদের জন্য এটা ছিল একটা অনেক বড় টুইস্ট। মেহেন্দি আর উৎসব অফিসে ঢুকতেই সবাই তাদের না চেনার ভান করে। মেহেন্দি ভীষণ রেগে যায়। রিসেপশনে থাকা একজন কর্মচারী তাকে বলে ভিতরে ঢুকতে গেলে প্রথমে পাস বানাতে হবে। কিন্তু কৌশিকী ফোন করে তাদের ভিতরে আসার পারমিশন দেয়। চেয়ারে কৌশিকীকে বসে থাকতে দেখে অবাক হয়ে যায় মেহেন্দি।

এরপরেই ঘরে এক এক করে ঢুকে আসে কোম্পানির গণ্যমান্য ব্যক্তিরা। উৎসব আর মেহেন্দি তাদেরকে ধার হিসেবে কৌশিকের বিরুদ্ধে দাঁড় করাতে চাইলে তারা বলে এতদিন মেহেন্দি এই চেয়ারে বসতে পেরেছে তার একমাত্র কারণ হচ্ছে কৌশিকী মুখার্জি। এরপর কৌশিকী বলে সে এতদিন ধরে মেহেন্দির সাথে একটা খেলা খেলছিল। মেহেন্দি চাইছিল এই অফিসে এসে তার চেয়ারে বসতে। তাই তার ইচ্ছেটাকে পূরণ করতেই এই অফিস অফিস খেলা। এই সমস্ত কিছু শুনে এবং সত্যিটা উপলব্ধি করার পর রাগে দুঃখে পাগল হয়ে যায় মেহেন্দি। এক ঘর লোকের সামনে সে কৌশিকীকে হুমকি দেয় যে মেহেন্দি তাকে ছাড়বে না। কিন্তু তাতে কারোরই বিশেষ আসে যায় না। শেষ পর্যন্ত কলতলা কালচারের মেহেন্দিকে উচিত শিক্ষা দিয়েই ছাড়লো কৌশিকী।

অন্যদিকে বহুদিন ধরেই এই ধারাবাহিকে চলছিল স্বয়ম্ভু মৃত্যু রহস্য। সেই রহস্য সমাধান এই ব্যস্ত ছিল জগদ্ধাত্রী। এই মুহূর্তে সেই রহস্যের সুরাহা হয়েছে। ফিরে এসেছে স্বয়ম্ভু। কিন্তু এখন জগদ্ধাত্রী এক নতুন সমস্যার সম্মুখীন হয়েছে। তুষার তীর্থ তলাপাত্রের ছেলে টিটু এক জঘন্য অপরাধ করে। সে তিন্নির কিছু অস্বস্তিকর ছবি নিজের কাছে রেখে দেয়। সে বারবার তিন্নিকে ব্ল্যাকমেইল করে যে সেই ছবি সে ভাইরাল করে দেবে। এবার টিটুর বাবা তুষার সেই একই পন্থা অবলম্বন করে নিজের পিঠ বাঁচাতে ব্ল্যাকমেইল করে জগদ্ধাত্রীকে।

এবার সেই ব্ল্যাকমেল থেকে বাঁচতেই দিব্যা সেনকে থানায় নিয়ে আসলো জগদ্ধাত্রী। শুধুমাত্র দিব্যা নয় তার স্বামী মৃদুল সেনকেও হাজির করল তার সামনে। জগদ্ধাত্রী দিব্যা সেনকে বলল, “জীবনে অনেক মানুষের অনেক ক্ষতি করেছেন এইবার আপনাকে একটা কাজের কাজ করে দিতে হবে। তুষার তীর্থ তলা পাত্রের কাছে একটি ছবি আছে, সেই ছবিটি যে যে ডিভাইসে আছে সেই সব ডিভাইস আমার চাই।” দিব্যা কি সাহায্য করবে জগদ্ধাত্রীকে?

Back to top button