পর্ণার সাথে সুবিচার করে অয়নকে জু’তো পে’টা করলো জেঠু! রইল আজকের পর্ব

পর্ণার সাথে অন্যায় করায় এবার জেঠুর কাছে জু'তো পে'টা খেলো অয়ন

এই মুহূর্তে রমরমীয়ে চলছে জি বাংলার (Zee Bangla) এক জনপ্রিয় ধারাবাহিক নিম ফুলের মধু (Neem Phuler Modhu)। অভিনেতা রুবেল দাস ও অভিনেত্রী পল্লবী শর্মার জুটি ধীরে ধীরে দর্শক মনে জায়গা করে নিয়েছে। ধারাবাহিক টিআরপি (TRP)-র তালিকাতেও স্থায়ী জায়গা পেয়েছে।

আগের দিনের পর্বে দেখা যায়, বটব্যালকে চিনতে পারে যায় পর্ণা। যখন বাড়ির সবাই একসাথে এক ঘরে ছিল ঠিক সেই সময় সেই সুযোগটাকে কাজে লাগিয়ে সবার সামনে বটব্যালের মুখোশ খুলে দেয় সে। পুলিশ এসে তাকে ধরে ফেলে। পুলিশকে ডেকে আনে পর্ণাই। মাঝে যদিও বটু পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টাও করেছিল কিন্তু সেই চেষ্টা বৃথা যায়।

পুলিশের হাত থেকে মৌমিতা অয়ন এবং তিন্নিকে বাঁচায় পর্ণা। পুলিশ তাদের জিজ্ঞাসা করে এই ভয়ংকর আসামী এতদিন ধরে এই বাড়িতে ঘাপটি মেরেছিল কি করে? কেউ কি ওকে সাহায্য করেছে? তখন ভয় পেয়ে যায় মৌমিতা অয়ন আর তিন্নি। কিন্তু পর্ণা তাদের নাম পুলিশকে বলেনি।

তাই বলে যে তারা ছাড় পেয়ে গেছে তেমনটাও কিন্তু নয়। অয়নের বাবা অখিলেশ অর্থাৎ সৃজনের জেঠু জুতোপেটা করে অয়নকে। কৃষ্ণা বলে তিন্নি আর ওই বাড়িতে থাকতে পারবেনা। প্রত্যেকের ভাবতেও ঘেন্না করে যে এরা তিনজন মিলে আজকে সৃজনের গোড়ালি গুঁড়ো করে দিয়েছে।

যখন কৃষ্ণ তিন্নিকে বাড়ি ছেড়ে চলে যাওয়ার কথা বলে তখন বর্ষা বলে ওঠে এটুকুতেই কি সমস্ত দোষ মাপ হয়ে যায়? তখন সে সবাইকে পর্ণার কাছে ক্ষমা চাইতে বলে। তখন পর্ণা বলে ওঠে, “যারা আমার সৃজনের এত বড় ক্ষতি করেছে তারা আমার কাছে ক্ষমা চাইলেও আমি তাদেরকে ক্ষমা কোনদিনও করবো না।” এত কিছু করার পরেও কৃষ্ণা আর সৃজন পর্ণার প্রতি বিমুখ হয়েই থেকে যায়।

Back to top button