‘কাছের আত্মীয়রা অনেক সময় বাচ্চাদের ম’লে’স্ট করে…’ পি’ডো’ফি’লি’য়া নিয়ে মুখ খুললেন অভিনেতা সুদীপ মুখোপাধ্যায়

টেলিভিশনের (Television) অন্যতম জনপ্রিয় মুখ সুদীপ মুখোপাধ্যায় (Sudip Mukherjee)। যাঁর অভিনয় বারবার মুগ্ধ করেছে ধারাবাহিকপ্রেমীদের। নানা ঘরানার অভিনয়ে করেছেন অভিনেতা। বর্তমানে স্টার জলসার (Star Jalsha) ‘বঁধূয়া’ (Bodhua) ধারাবাহিকে নেতিবাচক একটি চরিত্রে অভিনয় করছেন তিনি।

ধারাবাহিকের গল্পে অভিনেতার নাম রণ ওরফে রানা রায় চৌধুরী। শক্তিশালী, ধূসর চরিত্র তাঁর। প্রভাবশালীর এই ব্যক্তির চরিত্রে রয়েছে অন্ধকারময় একটি দিক। রানা রায় চৌধুরী পি’ডো’ফি’লি’ক। ছোট বাচ্চাদের প্রতি যৌ’ন আকর্ষণ রয়েছে তার। ধারাবাহিকের নায়িকা পেখম। গল্পে পেখমের পরিবারের একজন রণ। তার সঙ্গেও অন্যায় করেছে সে। সুদীপ মুখোপাধ্যায়ের করা চরিত্রটি ইতিমধ্যেই জনপ্রিয় ধারাবাহিকপ্রেমী মহলে।

শুটিংয়ের ফাঁকেই খুল্লামখুল্লা আড্ডায় মাতলেন অভিনেতা। বললেন,”অনেকদিন পর রানা রায় চৌধুরীর মতো ইন্টেন্স চরিত্র করছি। আমি চাই দর্শক চরিত্রটা বুঝুক। এবং মন খুলে সমালোচনা করুক। আমাদের আশেপাশে এমন অনেক রানা রায় চৌধুরীরা ঘুরে বেড়াচ্ছে। অনেক সময় বাচ্চাদের দমিয়ে রাখা হয়। সেটা শুধু মেয়েদের ক্ষেত্রে নয়। ছেলেদের ক্ষেত্রেও। বাবা-মাকে সন্তানের বন্ধু হয়ে উঠতে হবে। যাতে মনের কথা কাউকে খুলে বলার পরিসরি তৈরি হয়।”

অভিনেতা নিজেও এক মেয়ে ও দুই ছেলের বাবা। নিজে বাবা হিসেবে কীভাবে সন্তানদের প্রতি দায়িত্ব পালন করেন? উত্তরে অভিনেতা বলেন,”অধিকাংশ ক্ষেত্রে দেখতে পাওয়া যায় বাচ্চারা মলেস্ট হয় পরিবারের খুব কাছের কারোর কাছ থেকে। আমি চেষ্টা করি সন্তানদের সঙ্গে ফ্রি হয়ে মিশতে। আমার মেয়ে এমন অনেক কথা শেয়ার করে যেটা ওঁর মায়ের সঙ্গে করতে পারে না। এই ট্রান্সপারেন্সি থাকা উচিত।”

অভিনেতা আরও বলেছেন, ”যা কিছু অস্বাভাবিক তাই রোগ। পি’ডো’ফি’লি’য়া একটি রোগ। এখন ছেলে মেয়ে নির্বিশেষে বাচ্চারা এ ধরনের হিংসার শিকার হচ্ছে।” ধারাবাহিকের গল্পে এই বার্তাই দিতে চেয়েছেন অভিনেতা। পি’ডো’ফি’লি’য়া নিয়ে শিক্ষা ও সতর্কতা ছড়িয়ে দেওয়াই পর্দার রানা রায় চৌধুরীর আসল উদ্দেশ্য।

Back to top button